অভিজিৎ দাশ গুপ্তের কবিতা

অভিজিৎ দাশগুপ্ত
কবিতা
Bengali
অভিজিৎ দাশ গুপ্তের কবিতা

অপেক্ষা

শব্দগুলো একে একে হারিয়ে যাচ্ছে গুহার গহ্বরে;
সৃজনশীল স্বপ্নগুলো হারিয়ে যাচ্ছে রূঢ় বাস্তবে।
আর আমি হারিয়ে যাচ্ছি প্রবল
সাদা শৈত্যপ্রবাহে।

পুরু বরফের স্তরে সারা শরীর,
শুধু হাত দুটো বরফের উপরে।
শব্দ আর স্বপ্নগুলো একে অপরকে
জড়িয়ে শীতঘুমে আচ্ছন্ন।
কবে এন্টার্কটিকা উষ্ণ পরশ পাবে
কে জানে? কে বলতে পারে?
আমি বসে আছি তোমার
চোখ ও ঠোঁটের উষ্ণ অপেক্ষায়।

কিসে কি লাভ?

মানুষের ভিতরে বৃষ্টির বড় অভাব,
বাইরে বৃষ্টিতে স্নাত হয়ে কি লাভ!
অন্তরে যদি প্রাণ না থাকে
তবে মানুষ হয়ে কি লাভ!
আবেগ নিয়ে যদি কাটাকুটি খেলো
সবই যদি মাথা দিয়ে ভাবো
তবে তুমি যন্ত্র ছাড়া কিছু নও।
আদিম রক্ত এখনো তোমার শরীরে,
ভালোবাসার আলো এখনো তোমার অজানা,
শুধু খোলস বদল করলে কি লাভ!
আসল মানুষটা তো
সেই আদিম থেকে গেলো।
মানুষের ভিতরে বৃষ্টির বড় অভাব,
বাইরে বৃষ্টিতে স্নাত হয়ে কি লাভ!
অন্তরে যদি ভালোবাসা না থাকে
তবে মানুষ হয়ে কি লাভ!

 

মেঘের মতো একা

বাড়ির ছাদে উঠে হাত বাড়ালেই
মেঘ ছোঁয়া যায়;
কোনোদিন তাকে জিজ্ঞেস করলাম না—
‘কিসে তোমার চোখের জল,
কিসে তোমার আলোকিত হৃদয়’?
বৃষ্টিকে ছুঁয়ে পুলকিত
আর দামিনী থেকে নিজেই সরে গেছি।
কখনো মেঘকে বলি নি
‘ এসো তোমার সঙ্গী হই,
এসো আমার মনে একটু জায়গা দি’।
মেঘেরও তো ইচ্ছে হয়
মনের কথা শুধাবার।
মেঘেরও তো ইচ্ছে হয়
তার যাত্রাপথে তার হাত
কেউ ধরে বলুক
আমি তোমার পাশে পাশে আছি।
আমরা কেউ কারুর পাশে নেই,
পাশে থাকতে পারি না, জানি না—
কারণ ছোটোবেলা থেকেই
নিজেকে বেশি বেশি করে ভালোবাসতে শিখেছি।
আর অন্য কারুর কথা ভাববার
অবকাশ নেই।তৈরিও হয় নি।
মেঘের মতো আমরাও যে একা, বড্ড একা।।

অভিজিৎ দাশগুপ্ত। কবি। অভিজিৎ দাশগুপ্তের জন্ম ১৯৭৬ সালে কলকাতায় এক মধ্যবিত্ত পরিবারে। এখন কবি কলকাতাতেই বসবাস করছেন। পিতা অরুণ কান্তি দাশগুপ্ত পেশায় শিক্ষক ছিলেন। পিতার অনুপ্রেরণায় বর্তমানে কবি শিক্ষকতার মহানব্রতে নিজেকে নিয়োজিত করেছেন। কবি ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

প্রতিভাস

প্রতিভাস

স্পষ্টতা অন্ধকারের মতো স্পষ্টতা আলোর মধ্যগগনে নেই। উত্তাপে ঝলসে যাওয়া চোখে শীতলপাটি বিছিয়ে দেয় রাত…..

চিঠি

ক্ষোভ রোদের দোকানি হয়ে, ছুঁয়ে গ্যাছি দূর পরবাস আলোর ক্রেতারা দেখে, শূন্য ঝুলি খালি সর্বনাশ।…..