অভিমান

শারমিন সুলতানা রীনা
কবিতা
Bengali
অভিমান

প্রতিশ্রুতি

পূর্ব পুরুষের পথে ক্রমান্বয়ে এগিয়ে যাচ্ছি
অভিমানের আর্তিতে মহাকালের কাছে
লিখে যাই আমিও তার হিসেবের একটি অংশ ছিলাম।
এই বুকে একদিন জোসনা বেঁধেছিল ঘর
নির্জন ঢেউয়ে লেগেছিল দোলা
মেঘের প্লাবনে ভেসেছিলাম পরিযায়ি মেঘ হয়ে।
কেউ আর বলবেনা কাল রাতে ঘুমাতে পারিনি
তোমাকে ভেবে।
পুরো রাত নক্ষএ হয়ে পাহারায় ছিলাম
খোলা জানালায়।
বুকের ভাঙ্গনে জেগেছিল যে মৃওিকা
সেখানে রোপণ করেছি যে বীজ তুমি কি জানো
কার নামে ফুঁটেছে ফুল ধরণীর কোল জুড়ে?
বেদনার রঙে আঁকা যে ছবি তাও কেবল
তারই অবয়ব।
স্বপ্ন আর দুঃস্বপ্নের অঙ্গীকারের মুখোমুখি দাড়িয়ে
বিদায়ের শেষ বেলা তবু তাকেই দেয়া হলোনা প্রতিশ্রুতি।।

উল্কাপাত

তোমাকে ছুঁয়ে যেতে
ইচ্ছেদের যখন খুব বেশী বাড়াবাড়ি
আমার জোটেনা তখন কিছুই।

বসন্তের রক্তিম আভায়
তোমার নির্জনতায় খুঁজি আশ্রয়
তুমি তখন উওরী বাতাসে উড়িয়ে দাও।

একটু মানবিক প্রেম ও পরশের কাছে
কতটা তৃষ্ণার্ত হলে কেউ
গড়ে তোলে শুন্যেই ঘর সংসার।

সেই কবে হারিয়েছি ভাষা,
হারিয়েছি কারুকাজ।

মাটির শরীর তবু মাটির কাছেই
পেতে চায় আজন্ম লালিত সাধ।

আকাশ কি রাখে মনে?
অঙ্গন থেকে কখন ঘটে
কোন উল্কাপাত????

অভিমান

অসীম শুন্যতা ধারণ করে
তিমিরে গিয়েছি মিশে
বিষের পেয়ালায় দিয়েছি চুমুক
ভয় তবে আর কিসে?

বুকের দরজায় মৃদু করাঘাতে
দাওনি হৃদয় খুলে
মৃত স্বপ্ন দু’চোখে জড়িয়ে
যাতনা নিলাম তুলে।

নির্জনে তাই হত্যা করি
বাসনার গভীর বোধ
নিজের হাতে সাজানো চিতায়
পুড়ে নেবো প্রতিশোধ।।

 

হৃদি-মেদুরতা

যদি পারি যেতে কান্নাহীনতায়
কোনো ঝলমলে আলোর নিশ্বাস…
হয়তো পাবোনা ফিরে যৌবনের প্রথম প্রহর;

দেখিনা পারি কিনা ফোটাতে বসন্তের ফুল,
হাত বাড়িয়ে দিলাম অবিশ্বাসের পৃথিবীতে যদি কখনও ফেরে বিশ্বাসী ক্ষণ;

প্রশান্তির বন্দনায় সমস্ত অনিশ্চয়তার রোমন্থনে আসবো

দেখে নিও আনবই শ্যামলিম জীবন।

 

আকুতি

স্বপ্ন দেখিয়ে কেড়ে নিলে আজন্মের ঘুম
তার কিছুটাতো দাও।

শীতার্ত আমাকে দিলে ক্ষনিক
উষ্ণতার সুখ
বর্ণময় পৃথিবীকে করলে আরো বর্ণময়।
আমার আকাশে উঠালে সাত রঙের রঙিন রামধনু।

অতঃপর হঠাৎ কি হলো তোমার?
বুঝি ভেঙে গেলো আবেগের সবটুকু রেশ।
অতঃপর বিষাদের তিমিরে ঢেকে গেলো চলার পথ।
কতটা নিষ্ঠুরতা ধারণ করে কেড়ে নিলে বসন্তের রঙিন সুবাস?

পদ্মার নিজস্ব স্বভাবের মতো ভাসালে
স্মৃতির সোনালী পাড়।

রাখালিয়া বাদক কী এমন অপরাধে থামালে উদাসী বাঁশির সুর?

যাকে স্বেচ্ছায় বন্দি করেছিলে
একবার ফিরে চাও।

তোমার স্বপ্ন বয়ে অপেক্ষার প্রহর বুনে যায় অবিরাম..

শারমিন সুলতানা রীনা। কবি ও ছড়াকার। জন্ম বাংলাদেশের গোপালগঞ্জ জেলায়, বর্তমান নিবাস ঢাকা। প্রকাশিত বই: 'মুজিব মানে বাংলাদেশ' (ছড়া, ২০২১), 'মা এক পৃথিবী' ((ছড়া, ২০১২), 'আমার কেবল ইচ্ছে করে' (ছড়া, ২০১৬), 'চড়ুই পাখির ছানা' (ছড়া, ২০১৫), 'বাবা আমার বাবা' (ছড়া,...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

প্রতিভাস

প্রতিভাস

স্পষ্টতা অন্ধকারের মতো স্পষ্টতা আলোর মধ্যগগনে নেই। উত্তাপে ঝলসে যাওয়া চোখে শীতলপাটি বিছিয়ে দেয় রাত…..

চিঠি

ক্ষোভ রোদের দোকানি হয়ে, ছুঁয়ে গ্যাছি দূর পরবাস আলোর ক্রেতারা দেখে, শূন্য ঝুলি খালি সর্বনাশ।…..