আপন ডোরে বেঁধেছ যারে

অভিজিৎ দাশগুপ্ত
কবিতা
Bengali
আপন ডোরে বেঁধেছ যারে

আপন ডোরে বেঁধেছ যারে

ধরো, তুমি যাকে মন উজাড় ভালোবাসো,
যাকে অন্তরে বাসা বাঁধতে দিয়েছো,
সে যদি তোমায় কখনো ব্যথার নদীতে ভাসিয়ে দেয়
তবুও কি তোমার ভালোবাসা একটুকুও কমে যাবে ?
জানি কোনো অবস্থাতেই
ভালোবাসা হাত ছেড়ে দেয় না।
জানি কোনো অবস্থাতেই
ভালোবাসা নিজেকে ছোট হতে দেয় না।

ধরো, একদিন হঠাৎ সকালে ঘুম থেকে
চোখ খুলে দেখলে—
তুমি আর তোমার ভালোবাসা
মাঝবরাবর এক বিশাল প্রাচীর
তুমি কি প্রাচীর ভাঙার চেষ্টা করবে না?
তুমি কি পারবে ভালোবাসাকে এমনি ভুলে যেতে?
ভালোবাসা কখনো ভুলে যেতে শেখায় না
ভালোবাসা কখনো দূরে সরে যেতে শেখায় না।

হিসেব করে কেউ কোনোদিন ভালোবাসতে পারে নি পারবেও না;
ভালোবাসা আসলে এলোমেলো, অগোছালো।
এই এলোমেলো, অগোছালো ভালোবাসাকে
নিজের মতো গুছিয়ে নিতে হয়।।

 

শুধু তোমার জন্য

এই যে শুনতে পারছো আমার কণ্ঠস্বর
তোমার কণ্ঠস্বরে প্রতিধ্বনিত হতে চাইছে।

এই যে দেখতে পারছো ঘন কালো দুটি চোখ
তোমার প্রতীক্ষার আগুনে উজ্জ্বল হতে চাইছে।

এই যে স্পর্শ করে শরীর জোড়া ছায়া
শূন্য মাঝে তোমার ছায়ায় বিলীন হতে চাইছে।

এই যে সুবিশাল কৃষ্ণচূড়া গাছটা
সারাবছর তোমার জন্য লালে লাল হতে চাইছে।

এই যে টলমলিয়ে চলা আমার বৈতরণী
তোমার ঘাটে শেষ ঠিকানা হতে চাইছে।

এই যে দেখছো শেষ না হওয়া পলকহীন পথ
তোমাকে একবার দেখবে বলে পথিক হতে চাইছে।

এই যে তোমার জন্য এত আকুলতা, ব্যাকুলতা
মন, শেষ শ্বাস পর্যন্ত বাঁচিয়ে রাখতে চাইছে।।

 

নিজেকে প্রশ্নে জড়াও

আমাদের সমস্যা, আমরা প্রশ্ন করতে শিখিনি
একটু ঘুরিয়ে বলা ভালো—-
আমাদের প্রশ্ন করতে শেখানো হয় না।
ছেলেবেলা থেকে শুধু শোনো ,
কোনো প্রশ্ন কোরো না।

প্রশ্ন করা –ব্যক্তি স্বাধীনতার প্রথম সোপান।
অথচ সেই সোপানের দিকে কোনো নজর নেই।
তাই যা হওয়ার তাই হয়;
আমরা প্রশ্নবাণে জর্জরিত করি না কুসংস্কারকে,
অন্যায়, অত্যাচার, অবিচারের বিরুদ্ধে
প্রশ্ন করার সাহস জোগাড় করতে পারি না।
প্রশ্ন করা যেখানে অবহেলিত,
অবহেলার বিরুদ্ধে প্রশ্ন তোলা যায় কি?

সবার আগে
প্রশ্ন করার তাগিদ তৈরি করতে হয়।
মাথার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে জমে থাকা
অস্পষ্টতার পাহাড় ভেঙে এক নতুন
সমতলে হাটতে শুরু করতে হয়।।

অভিজিৎ দাশগুপ্ত। কবি। অভিজিৎ দাশগুপ্তের জন্ম ১৯৭৬ সালে কলকাতায় এক মধ্যবিত্ত পরিবারে। এখন কবি কলকাতাতেই বসবাস করছেন। পিতা অরুণ কান্তি দাশগুপ্ত পেশায় শিক্ষক ছিলেন। পিতার অনুপ্রেরণায় বর্তমানে কবি শিক্ষকতার মহানব্রতে নিজেকে নিয়োজিত করেছেন। কবি ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

প্রতিভাস

প্রতিভাস

স্পষ্টতা অন্ধকারের মতো স্পষ্টতা আলোর মধ্যগগনে নেই। উত্তাপে ঝলসে যাওয়া চোখে শীতলপাটি বিছিয়ে দেয় রাত…..

চিঠি

ক্ষোভ রোদের দোকানি হয়ে, ছুঁয়ে গ্যাছি দূর পরবাস আলোর ক্রেতারা দেখে, শূন্য ঝুলি খালি সর্বনাশ।…..