আমি সেই মেয়ে

চৈতালী মুখার্জী
কবিতা
Bengali
আমি সেই মেয়ে

স্বরস্বতী সরস্বতী

 

সারবছর চোখ থাকতো মায়ের শাড়ির আলমারিতে |

কমলা রঙা মুর্শিদাবাদী , বাসন্তী পিংক বেনারসী ,

অথবা বেশ জমকালো সেই আকাশ রঙা জামদানী|

মোটকথা খুব প্রিয় ছিলো রামধনু সেই আলমারী |

মাগো আমায় দেবেতো ঠিক ? স্বরস্বতী পুজোর দিনে ?

দিন পনেরো আগের থেকে লক্ষী মেয়ে কথা শোনে |

কেমন যেনো গা শির শির ,বড়ো হওয়ার অনুভূতি

এনে দিতো মায়ের শাড়ী জড়িয়ে গায়ে চুপি ,চুপি |

তারও আগে বাচ্চা বেলায় |

ছিলো আমার ছোট্ট শাড়ী |

পরিয়ে দিয়ে বলতো বাবা ,এই তো আমার রাজকুমারী |

অন্ধকারে অবছায়াতে ফুল তুলবো সাজি ভরে

আলপনা আর ধুপ ধুনো স্বরস্বতীর আসন জুড়ে |

খিচুড়ী ভোগ ,পাঁচ ভাজা , পায়েস মিষ্টি তারই সাথে

ইস্কুলেতে দেদার ভোজ স্বাধীনতার গন্ধে ,স্বাদে |

তারপরে সেই রামধনু রঙ হঠাৎ কখন লাগলো চোখে

স্বরস্বতীর বীণার তারে তখন ইমন ,ভৈরো বাজে |

রঙ বদলায় জীবন ধীরে প্রতি বসন্তে পঞ্চমীতে |

শাড়ীই যখন জড়িয়ে ধরে প্রতি বসন্তে পাকে ,পাকে

স্বপ্নরা সব আড়ি করে কোথায় লুকায় একে ,একে

স্বপ্নে যখন ইস্কুল গেট অনেক দূরে অবছায়াতে

স্বরস্বতীর বিসর্জনের বাজনা ঘুমে কানে আসে |

দারোয়ান তফাত যাও বলে জোরে ,জোরে হাঁকে |

রামধনু রঙ আলমারীটা বদলে গেছে কোন সে ফাঁকে |

আমার এখন রামধনু রঙ ,মায়ের শ্বেত মেঘের চাদর |

স্বপ্নরা সব ছুটি নিলো পাড়ি দিলো তেপান্তর |

আর বলিনা মাগো আমায় বিদ্যা দাও ,বুদ্ধি দাও |

অনেকগুলো চাওয়া কেমন আপনা থেকে পাল্টে গেছে |

পুষ্পাঞ্জলির দু একটা ফুল আর পড়ে না গায়ে এসে |

লাজুক চোখে তাকিয়ে কেউ আর ফেলেনা মুচকি হেসে |

 

একটা নৌকা চাই 

একটা নৌকা চাই বোঝা গুলো রাখবো |

লম্বা শ্বাস নেবো তারপর |

ঝুঁকে যাওয়া পিঠটাকে একটু টান করে

না হয় বইবো আবার |

সেই কত দূর থেকে একা একা পথ চলা |

একে একে বাঁকে বাঁকে কত বোঝা পিঠে ফেলা |

নুয়ে পড়ি ভারে তবু পাইনি

নৌকো খানি |

যেখানে নামিয়ে বোঝা –

একটু বিশ্রাম নেবো |

নদী বুকে ভেসে যাবো |

পরম আশ্রয়ে যার মায়ায় নিবাস আমার

তার ছায়া ছায়া ঘেরা মায়াজালে ঢেলে দেবো ক্লান্তি |

তারপর ক্লান্ত চরণ দুটো আপনিই ভেঙে গেলে

আপন বুকের মাঝে মিশিয়ে আশ্রয় দেবে

কে সেই নাবিক ? সেকি তুমি ?

 

আমি সেই মেয়ে

আমি সেই মেয়ে যে ভালবেসেছিলো |

ভালোবাসা চেয়েছিলো দুহাত ভরে |

দুচোখে স্বপ্ন নিয়ে এতটা পথ পাড়ি দিলো যে

ইচ্ছে ডানায় ভর করে |

কখনো শ্রান্ত বসেছে কোথাও কখনো দিকভ্রষ্ট |

আবার ফিরেছে লক্ষ্যে ,

জীবনের ঘূর্ণিতে ঘুরপাক খেতে ,খেতে !

আমি সেই মেয়ে যার লক্ষ্য সুনিশ্চিত ,

অথবা লক্ষ্যহীন ভেসে চলেছে স্রোতের টানে |

ভালোবাসার কারবারী |

লাভ লোকসানের হিসেবে অপটু ,অচঞ্চল |

হার মানেনি হৃদয় |

যুদ্ধ অবিরত |

ভালবাসা ,করুণা ,মায়া ,মমতার বর্মে সুরক্ষিত দুর্ভেদ্য |

আমি সেই মেয়ে যে জয় করেছে নিজেকে,

ক্ষমা দিয়ে ,ভালবাসা দিয়ে |

আমি সেই মেয়ে যে বেড়ে উঠেছে অবহেলায় ধীরে ,ধীরে ,

মাধবীলতার মত তোমার জানলায় |

রাতের সুগন্ধ বাতাস হয়ে মিশেছে তোমার নিশ্বাসে অজান্তেই

অথবা স্বইচ্ছায়

আমি সেই মেয়ে যার চলে যাওয়া হয়তো বেদনার নয় |

তবু একফোঁটা বাতাস হয়তোবা কম হবে তোমার নিশ্বাসে |

শুকনো মাধ্বীলতার !

আমি সেই মেয়ে যারা জয়ী হয়

চিরকাল শুধু ভালোবেসে |

 

সুর সম্রাজ্ঞী লতা মাঙ্গেশকর স্মরণে

গন্ধর্ব লোকে আজ বাজছে মঙ্গল গীত ,

আসন পূর্ণ করে স্বরস্বতী পুত্রী

বিরাজে বহুকাল পর |

কিছুদিন আগে নিয়েছেন স্থান স্বয়ম শিবাংশ

নটরাজ |

বিরজু মহারাজ |

গন্ধর্ব লোকে মহানন্দ আজ |

আরও যারা নিয়েছেন স্থান

ছেড়ে কায়া,ভুলে মায়া ,মিথ্যা অপবাদ ,

সুরে সুরে বাঁশি পুরে ইমন ,বেহাগ |

তাক ,তেড়েকেটে ,দুম ,তাক তেড়েকেটে দুম ,

দ্রিম তা না ,না ,দ্রিম তা না ,না দ্রিম

স্বরে ,তালে ,সুরে ,সুরে আনন্দ বিলীন |

মিথ্যা এ মোহ মায়া ,মিথ্যা আলোচনা ,

মিথ্যা এ অশ্রুর ভার |

জীবন শুধু রেখে যাওয়া মিশ্র কর্মের ভার

প্রতিদিন মঞ্চে |

ভালো মন্দে ,বিষে ,নির্বিষে ,হাততালি ,ধূৎকার |

গন্ধর্ব লোকে উৎসব তাই আজ |

চৈতালী মুখোপাধ্যায় (কণা )। কবি, বাচিক ও সংগীতশিল্পী। জন্ম ৩০ শে আগস্ট ১৯৬৬ ভারতের পশ্চিমবঙ্গরাজ্যের কলকাতা। বর্তমান নিবাস মহারাষ্ট্রের নাগপুর। প্রকাশিত বই: 'সুবেদিতা' (কাব্যগ্রন্থ, ২০১৯)।

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

ফেরা

ফেরা

ফেরা অনেক দিন আসিনি তোমার চোখের কোণে, বুকের পাশে, নিঃশ্বাসের চারপাশে। ভেবো না আমি পথ…..