ইতিকা বিশ্বাসের কবিতা

ইতিকা বিশ্বাস
কবিতা
Bengali
ইতিকা বিশ্বাসের কবিতা

ধিক্কার 

বঙ্গভূমি নেইরে আজ হয়েছে রঙ্গভূমি
প্রতিবাদী ভাষা হয়েছে রক্তে লাশ
প্রশাসন আছে গদিতে বসে খোলা চোখ ঢাকা
কালো কাপড়ে অন্ধ বিচার কিসের মাতৃভূমি।

পুলিশের প্রতি নেই আর সম্মান রয়েছে ধিক্কার
জনগনের জন্য যে আইন করছে দলিত তাড়াই
শান্তি বলে নেই কিছু পশ্চিমবঙ্গ হয়েছে বাংলা
আর কত কি দেখার আছে একই রূপ সব সরকার।

প্রাণ ঝড়িয়ে পাও কি তোমরা খেলছো হোলি খেলা
এতই যখন খেলার শখ রক্তে রাঙাও নিজের
অন্যায়ের প্রতিবাদে যদি হয় প্রাণের দন্ড
কেমন দেশ নেই বিচার হচ্ছে বলিদান সকল বেলা।

সবার আছে পরিবার নিজের দিকে চেয়ে দেখো
নেইকি তোমাদের একটুও বোধ গদিটা পেয়ে গেছো
লজ্জা করে বলতে আজ এটাই বঙ্গভূমি
করেছ শেষ তিলে তিলে কত করব আর ব্যখ্যা।

নিজ স্বার্থে উঁচু গলায় ভাষন সবাই দিতে পারে
ভাষন শেষে সব ভূলে যায় করেছে রাজত্ব জয়
চাইনা এমন সরকার দেয়না যারা জনগনের প্রাণের দাম
সত্যিই বড় অবাক লাগে এরাই অসাধ্য সাধন করতে পারে।

 

হাবরা সেন্ট্রাল লাইব্রেরি

হাবরার এক চৌমাথাতে আছে এক লাইব্রেরি
সেখানেই সমাগম ঘটেছে সকল গুণী জনের
দিনটি ছিলো ১১ই অক্টোবর সন ২০১৮
প্রকাশিত হলো যৌথ কাব্যগ্রন্থ একবিংশ শতাব্দীর কবিতার।

দারুণ ছিলো সবার মুহূর্ত গুলো পাঠে কবিতা গল্পে
কেউ কেউ আলোচনায় বুঝিয়ে দিলো সাহিত্য কাকে বলে
ভালো লাগে শুনতে এসব যায়না পাওয়া কেনা
অনেক সাধনা ইচ্ছা শক্তির ফলে কলমের লেখা কথা বলে।

তোমার দ্বারা হবেনা এসব কিছু ভেবোনা
তোমার লক্ষ্য তোমার সৃষ্টি মরতে দিওনা
ভালোবেসে সৃষ্টি করো তোমার লুক্কায়িত প্রতিভাকে
দেখবে পাবে মর্যাদা তোমার সৃজনশীল হবেনা ফেলনা।

অসাধারণ প্রতিভা কত জনের মাঝে দেখেছি গুনের কাছে
সাক্ষাৎকার না হলে কোনদিন বোঝাই যেতনা
সাহিত্যের সৃষ্টি ছড়িয়ে যাক নব প্রজন্মের কাছে
বাংলা মোদের প্রাণের ভাষা কেউ করোনা যাতনা।

 

তোমার জন্য অপেক্ষা

নীল দিগন্ত আসছে ছুটে আমায় ছুতে
দিয়েছি বাড়িয়ে হাত পবিত্র চরনে
চোখ খুলে দেখেছে আজ দীগন্তরের অপূর্ব অপরূপ
মুগ্ধতা মেলে ধরা এই সমুদ্রের সৌন্দর্যের প্রকৃতিতে।

আখি যেদিকে তাকায় সীমা নাহি পায় তোমাকে পাই
যেন ভেসে যাই তোমার তরে মাথা রেখে
হোক গভীর তবু তুমি আছো হৃদয়ে
মন কি যে বলে যায় সারা নাহি পায়।

হর্ষে হর্ষে পুলকিত হৃদয়ে ডাকে তোমায়
চুপিসারে আসো যাও আমাকে ভিজিয়ে
অজান্তেই বলে ফেলা আমার প্রেম তুমি
সব কিছু ভালো লাগায় একাকার হয়ে যায়।

আজ মনের দুয়ার আনন্দে খুলে দিল
ইচ্ছে হলে এসো অনেক কথা বলার আছে
সোনালী রোদে মিষ্টি রাতে বলব পরশ মেখে
তুলনা নেই তোমার কোন নেই যে কোন কূল।

ভালো লাগার সীমা নেই তুমি সৌন্দর্যের অতুল ঢেউ
গম্ভীরতা সুরে কখনও যেন বলে যায় কেউ
আমি আছি তোমার পাশে নেই তো কোন ভয়
আমি তোমার হিয়ায় আছড়ে পড়া ঢেউ।

যত থাকি তোমার পাশে আকর্ষনাতা বাড়ে
ডাকছো কেন মনের ডাকে পাগল পাগল করে
শূন্য আকাশ চেয়ে আছে সাক্ষী হবে বলে
এসোনা আজ দুজনেতে মত্ত হই বাড়ে বাড়ে।

 

 

 

 

ইতিকা বিশ্বাস। কবি ও শিক্ষক। ইতিকা উত্তর ২৪ পরগনা জেলার ঠাকুর নগরের শিমুলপুর গ্রামের এক মধ্যবিত্ত পরিবারে ১৯৯১ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর তিনি একজন উচ্ছল প্রাণের, মুক্তমনা, সদা হাসিখুশি, আনন্দময়ী, বাস্তববাদী, কল্পনাপ্রবণ, ভাবুক প্রকৃতির, আদর্শবাদী ও আত্মবিশ্বাসী। তিনি কবিতা লেখার...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ