এখন আমার এক’শ চার

সৈয়দ মাহমুদ
কবিতা
Bengali
এখন আমার এক’শ চার

এখন আমার এক’শ চার

মেঘ বালিকা,
কোথাকার এক দাপুটে ঝড়ো হাওয়া
তোমাকে তাড়িয়ে এনেছিল সেদিন-
অমনি জল বালিকা হয়ে
তুমি ঝুম ঝুম ঝরে পড়লে আমার শরীরে,
আমি থেকে থেকে ‍শিউরে উঠে
ঈষৎ কাঁপা ঠোঁটে সূদীর্ঘ চুম্বনের পর
প্রগাঢ় এক আলিঙ্গনে তোমায় জড়িয়ে নিলাম;
সেদিন থেকেই এক’শ চার আমার।

 

অস্তিত্বহীন

আছ কিংবা নাই এর মাঝে
মস্ত বড় দ্বিধার প্রাচীর
দীঘল পথের ক্লান্তি ছুঁয়ে
মন পুড়ে যায় শূন্য নীড়ে।
নিজের সাথে নিজেই যুঝি
কিসের তরে ভরসা খুঁজি,
রূদ্ধশ্বাসে ছুটছি বড়
যুদ্ধ বড় কঠিনতরো;
স্বস্তির আশে বুদ্ধি নাশে
রুধির যেন জমাট বাঁধে।
তাইতো বলি; শূন্যাকাশে
মেঘের ভেলা সাজিয়ে রেখো,
আছ কিংবা নাই এর মাঝে
দৃশ্যমান এক চিহ্ন এঁকো।

মন খারাপের বৃষ্টি

তোর লাল টুক টুক ওষ্ঠ জোড়ে
কামড় দিয়েছি শত,
পদ্ম নাভিতে চুম্বনের পর
উরুতে ঘসেছি মুখ নিঃসীম মত্ততায়
তবুও কি নির্লিপ্ততায়
বেহায়ার মতো ঝরছিস টিপ টিপ-
মন খারাপের বৃষ্টি;
কেন ঝরিস না ঝুম ঝুম!
দ্বিপ্রহরে নিত্য আমার
ইচ্ছে জাগে বডড ভেজার
জল শূণ্য মুখিয়ে থাকি; নিস্কাম তুই-
পারিসনা হতে শ্রাবণের ঢল?

 

তাকে যেতে দাও

কেন আড়াল করো-
ভেজা ভেজা ঐ রক্তিম যুগল পাপড়ি,
মধু চুম্বনে ভ্রমর তো বসবেই
কেন তা সরিয়ে নাও!
কেন ঢেকে দাও কবোষ্ণ পুস্প!
প্রস্ফুটিত ঐ চূড়ার শিখর দেখবো বলে
লোভাতুর চোখে তাকিয়েছি বহু বার,
কেন বন্ধনী টেনে তাকে আড়াল করে দাও!
কেন সংকুচিত করে নাও
অবিনাশী ঐ স্বপ্ন পথের দ্বার,
যে বাঁধার প্রাচীর ডিঙ্গোবো বলে
স্বর্গের পথ ছেড়ে বহু দূর হেঁটেছি আমি,
তাকে যেতে দাও স্রোতস্বিনীর উত্তাল গহ্বরে
অনন্ত যাত্রায়।।

সৈয়দ মাহমুদ। কবি ও গল্পকার। উত্তর জনপদের এক ছোট শহর গাইবান্ধায় জন্ম মুক্তিযুদ্ধের অব্যবহিত পূর্বে। ছোট বেলা থেকেই কিছুটা বোহেমিয়ান সৈয়দ মাহমুদ বেড়ে ওঠেন অনেকটা রক্ষণশীল পরিবারে। শৈশব থেকেই প্রকৃতি তাকে টানতো। বিরাণ প্রান্তরে, সারি সারি বৃক্ষের ছায়ায় হাঁটতে কিংবা...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..