কাতান রঙের ঘুম

অয়ন্ত ইমরুল
কবিতা
Bengali
কাতান রঙের ঘুম

দরদে

তারে যেন মনে পড়ে বহু তীর দূরে
জারুল বেড়ার ফাঁকে খেলতুতো বোন
তোমাকে ভাবলে সেই অথই শ্রাবণ
হাওয়ার ফড়িঙ দুলে জলের মুকুরে।
সহসা উথলে ওঠা পরান বাউল
ধুঁদুল ঝুরিতে বাজে একার বঁধুয়া
এ নায়র শেষ কবে জানে নাকি হাওয়া?
হৃদয়ের ডাকে যেন রাসূল রাসূল——

বিলচেরা পথে কে যে রাঙা কুয়াশায়
আঙার হল যে খুঁড়ে পুঁথির পাহাড়
এখানে মথ ঘিরেছে করুণ মান্দার—
টোপর পানার চাঁদ কাতর ভাষায়।
আমার স্মরণ রেখো,পূবাল হাওয়ায়
ভীষণ দরদে যেনো কাফের লুটায়…..

কাতান রঙের ঘুম

তখন কাতান রঙে এক দেশ তার
হাওয়ায় ওড়ায় বঁধু—সোনালি লেখন
চোখে পেতে ভরি হয় তরুর দহন
গলার শোভায় ফিরে সাত মণি হার।
তারে যেনো মনে পড়ে,রাঙা কুয়াশায়
রূপ তার ঝরে ছিল হীরে নাকফুলে
বেঁধে রাখো সেই নদী—ছলাৎ যে খুলে
তারে যদি পাও কাছে ইলিশে রুপায়।

কে?হে প্রেমের কৃষাণ—পলি সংশয়ের
এখানে সোনাই মাঠ একান্ত পুলকে
কাতান রঙের ঘুম পায় যেনো শ্লোকে
ধরে আনো সেই মাঠ—সাদা খরগোশের
সরু খালের সাঁকো যেনো কাঁপে ঝর্নায়
প্রলয়ে সৃজন আনো ব্যাথা মণিকায়…

আবার বেহুলা হলে

কুহক ছড়িয়ে পড়ে রাত নিকেলের
গাঙুরের জলে শুনি ক্ষুধিত বোয়াল
আবার বেহুলা হলে জানিও সাওয়াল
দরূদ দীদার পাশে মৃত লখিন্দের
কি উপায় পায় জোড়া বিপন্ন সুন্দর
রাখিনি আগর দোলা সুদীর্ঘ সাদির
চলন গজলে তবু এত যে মদির
কেন যে আমাকে দিলে ডোরাকাটা ভোর?

যেবা যায় দিনমান,উতলা উজান
তোমাকে ভাঙায় স্রোত রুপালির শ্লোকে
বাসক মানে যে হাওয়া মতিয়ার ছকে
দুধেল গাই চড়ায় বিহ্বল বাথান
ওখানে আবার এলে কাতানের ঘুম
আবার ফেলিও দাগ সুলেখা কুম্কুম…

 

কও হে অমৃত

আর তারে বলিও রুপোর পৈথান
মিহির ফলার পাশে একা সোনাভান
যেদিকে সোনালি খুশি—মাঠ তিয়াসার
ফাগুন হাওয়া টলায় দুরূহ সেতার
ডোবায় কাতর কোন বইচার চোখে
কে যে শঙ্খ—শামুকের জলবাগ রুখে
তুমি যেন বোলো,সেই শালুকের ঢেউ
অলিভের গানে যদি কেঁদে ওঠে কেউ
পলির হদিস থেকে যেটুকু কাতান
তারার ছুঁচে বোনা—কও হে বুনোধান
কও হে অমৃত—খুলে আলতার শিশি
দীন বেড়েও বধুয়া পাড়ে শৈলশশী

তুমি যদি নির্ভাষী আবার মহুয়ার
ধু ধু ক্রান্তি ওঠে সেই গ্রীষ্মের কথার…

 

এক্কার প্রসর

আষাঢ়ে এসেছো বালা খুলে রাম্বুটান
জলের মৃণাল কাঁপে ডুব—সিঁথিহাঁসে
কাতল চোখের পরে যে হাউস ত্রাসে
আউশ জানে সে হাওয়া—কীযে শরাবান
বেউড় আড়ালে তুলো ঝিঁঝিঁর কাতর
দূরাহৃত ঢেউ নাচে কনুই বাঁকিয়ে
আমার ঘুলিয়ে বেলা মেঘাগম প্রিয়ে
রাধেয় বলতে শুনি এক্কার প্রসর

সে দূরে তারার ধূল চোখের মরণ
রুপোর পালঙ্ক পোড়ে ব্যাথা অনিবার
কাকে যেন ভালবাসি খোদাই কপার
বনের ছায়ায় তারি পাখি হীরামন
হয়তো এমনই ডাকে এপার—ওপার
নিকিয়েছে ধান—দূর্বা সিঁথি শিরোধার।

অয়ন্ত ইমরুল। কবি। জন্ম ১৯৮৭ সালে বাংলাদেশের সাভার। প্রকাশিত বই: 'ছায়া সমুদ্র' (কাব্যগ্রন্থ, ২০১৬), 'বুদ্ধের ভায়োলিন' (কাব্যগ্রন্থ, ২০১৮), 'সাদা ধূলির দূরত্বে' (কাব্যগ্রন্থ, ২০২০), 'স্বৈর হাওয়ার হরিণী'  (কাব্যগ্রন্থ, ২০২০) এবং 'কিসমত আলী অথবা শূন্য' (গল্পগ্রন্থ, ২০২০)।

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

অহমিকা

অহমিকা

অহমিকা আত্মগরিমায় আজ অন্ধ হয়ে আছো, বিবেকের দংশনে মননে নেই বিশ্বাস। কর্মে ব্যস্ততা সময়ের আবর্তে…..