কুসুম, কাঁটা ও কীট

পুলক বড়ুয়া
কবিতা
Bengali
কুসুম, কাঁটা ও কীট

কুসুম, কাঁটা ও কীট

( ক )

ওঠানামা

এক বড় কষ্টের পৃথিবী
তুমি বয়ে বেড়াচ্ছ
এখানে নামাও
আমি একটু খুলে দ্যাখি
তার বুকে বুক রেখে
নীলাভ শোণিতে
অবতরণ করবে অপর অস্তিত্ব
আমি উত্থাপ নেব
তার ঠোঁটে ঠোঁট রেখে পান করব
অমৃত গরল
আমি আপাদমস্তক সন্তরণ করব
আমি নীলনীলাভকন্ঠ হব
আমি নীলনদে নৌকা বাইব
আমি কর্ণফুলীর সাম্পানওয়ালা
এই দরিয়ার কূলে-বুকে বেড়ে উঠেছি
আমি মাঝ গাঙের মাঝি
উজান ভাটির নাইয়া

ঝড় ও জলের উচ্ছ্বাসের সঙ্গে
খাপে খাপ ওঠানামা
উত্থানপতন আমার

( খ )

জিরো পয়েন্ট থেকে

তোমার লাইক কিংবা কমেন্টের তো কোনো খবর
নেই ! তুমি কী আমার পদ্যকে দ্যাখ না ! নাকি ইচ্ছে
করেই এড়িয়ে যাও—দ্যাখেও না-দ্যাখার মতোন
থাক; এ তোমার অহম-ভণিতা ছাড়া কিছু
নয়, অন্য কিছু নয়—নয় অবহেলা, অভিমান
ভালো লাগা মন্দ লাগার বিষয় তো নয়ই; তুমি
এখন ঘুপচি-গলির মতোন এসব পেরিয়ে
একেবারে সদর রাস্তায় এসে দাঁড়িয়েছ—যার
নাম, রাজপথ—আমাদের ওপেন সিক্রেট প্রেম

ইচ্ছে হলে শূন্য বিন্দু থেকে যাত্রা আরম্ভ করতে পারি
—অই যে জিরো পয়েন্ট থেকে যে কোনো দিকেই !

( গ )

তুমি–১

তোমার হৃদয়ের দুর্বলতার খবর কী ?

তুমি একজন বিশিষ্ট হৃদরোগ বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হও :
তিনি তোমার হৃদয়ের জটিলতা টের পাবেন ।

তুমি এত দেরী করছো কেন
তুমি কি তোমার নিজেরও সর্বনাশ করতে চাও !

তুমি–২

ইসরায়েল গাজা এবং
জেরুজালেম দখল করতে পারে :
আমি তো আর গাঁজাখোর নই যে,
তোমার হৃদয় দখল করবো ?

তুমি—৩

তোমাকে কেউ ভালোবাসতে পারে,
তোমার ভালো লাগবে না ?
তবে, বাসি—
তোমাকে তো বলিনি, তুমি কেন বাসবে—তুমি কে—
আমি তো প্রেমিক,
আগে প্রেমিকা হও !

( ঘ )

অন্ধ

বিদেশি জলার ধারে
আবাস তোমার
স্বদেশি গাঙের কূলে
বসতি আমার

উৎস থেকে উৎসে ফেরা
হৃদয় অতল
নাড়ী ছেঁড়া নীড়হারা
প্রসূন সজল

অভ্রের কাজলকথা
ক’ফোঁটা অক্ষর
অণু পরমাণু হয়ে
বোমারু চক্কর

তেজস্ক্রিয় স্মৃতিভারে
আজো বর্তমান
পঙ্গুত্ব বরণ করে
অপসৃয়মান

সেঁকতে সেঁকতে মন
হৃদয়ে পুড়েছে,
অন্ধ-গাঁটছড়া বেঁধে
জীবন পুঁতেছে ।

পুলক বড়ুয়া। কবি। জন্ম বাংলাদেশের চট্টগ্রামে। লেখাপড়া করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। প্রকাশিত গ্রন্থ: ‘ওই পূর্বে রাঙা সূর্যে’, এবং ‘পাঠেরা খেলছে মাঠে’।

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ