তারাখসা রাতে

তুলসীদাস ভট্টাচার্য
কবিতা
Bengali
তারাখসা রাতে

অনুভব

দেওয়া-নেওয়া করেই পেরিয়ে গেল
গড়পড়তা জীবন।

হিসেবী মন চার দেওয়ালের বাইরে
বেরোতে আর পারল কই!

ঘরের বাইরে যে পৃথিবী সে তো
অদেখাই থেকে গেল।

ক্ষণিক বসন্তের দ্রাঘিমায়
পাতাঝরা বিকালের ঘ্রাণ।

পর্ণমোচী বিলাপের নিচে
ফোটা ফোটা ঘামের ভেতর
ফুটে ওঠে মৌলিক অক্ষর।

 

দগ্ধ

চোখে যে আগুন জ্বলে সেখানে কোন আলো নেই

চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে স্পিলিন্টার
জায়গা দখলের লড়াই।

উত্তাপে সেঁকে নিচ্ছি
আমাদের শীতল শরীর।

আগুনের ভেতর জন্ম নেই
আমাদেরই বংশধর।

হামাগুড়ি দিয়ে দেখে আধপোড়া পৃথিবী।

 

দাউদাউ

পলাশ নিজেই রাঙিয়ে দেয় আকাশ
তোমার দাক্ষিণ্য সে কোনদিনই চায় নি ।

শুকনো পাতায় যখন ক্লোরোফিলের টান পড়ে
পুড়তে পুড়তেই সাজিয়ে দেয় বসন্তের কার্পেট।

ব্যারিকেড ভেঙে যত এগিয়েছি
সুদৃশ্য ঘরগুলি জ্বলে উঠেছে দাউ দাউ।

 

তারাখসা রাতে

গাঢ় লাল উঠে যেতেই
ফ্যাকাশে ঠোঁটের বুরুশ

মুছে গেছে চুম্বনের দাগ

ডাগর বোটায় চিন্ চিন্ ব্যথা
ফাটা দেওয়াল বেয়ে মেঘভাঙা জল

তারাখসা রাতে ঝুপ্ করে নামে আঁধার
পোড়োবাড়ির উঠোন জুড়ে ।

 

গাঙুড়

সেই কবে গাঙুড়ের জলে ভেসেছিল ভেলা
ডুবে গেছে চাঁদের সপ্তডিঙা

সহবাসের বিভূতি নিয়ে মনে হয়
আজও কেউ দাড় টানে বিষণ্ণ নদীজলে

মউল বাতাস পর্ণমোচী পাতার কানে কানে
শুনিয়ে যায় কিশলয় সুরধ্বনি

গাঙুড়ের অশ্রুস্রোতে যেদিন উঠেছিল তুফান
তেমন করে কোন সে নদী কেঁপেছিল অশ্রুসায়রে!

তুলসীদাস ভট্টাচার্য। কবি। জন্ম ভারতের পশ্চিমবঙ্গরাজ্যের বাঁকুড়া জেলায়। দারিদ্র্যের মধ্যেই কাটে কবির শৈশব কৈশোর ও যৌবন। ছেলেবেলা থেকেই লেখালেখির ঝোঁক। বর্তমানে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় নিয়মিতভাবে লেখা প্রকাশ পেয়ে চলেছে। পেশাগতভাবে তিনি ইংরেজি বিষয়ের শিক্ষক পদে কর্মরত। প্রকাশিত বই: 'ঝিনুকের স্বপ্ন' (কাব্যগ্রন্থ,...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ