ধূসর অক্ষরমালা

তৌহীদা ইয়াকুব
কবিতা
ধূসর অক্ষরমালা

ধূসর অক্ষরমালা -১

ঝন ঝন করে উঠে
উল্লাস ফেটে চৌচির ।

এই যে এত কিছু
তার চুলচেরা বিশ্লেষণ দেখি বা দেখিও না ।
তাদের অক্ষরে একচোখা জ্বলজ্বলে তোপ !
তোমায় কি বলি?
তার চেয়ে ভেঙ্গে গিয়ে নিজ পরিধিতে অস্থির হতে থাকি
ঝাপ্সা চোখে কস্টের অক্সিজেন শ্বাসে ভরি।

তারপর নিশ্চিত বিষণ্ণ বিকেল ঘুরে ফিরে
প্রাচীন রাত টেনে আনে ।

কিছু উদাসী আঁধার একত্র হয়
একাত্ব ও হয় , খুব গোপনে একলা দাঁড়ানো আয়না
নামগোত্রহীন হয়ে পড়া বিম্বের মায়ামুখ
আগলে রাখে।

ধূসর অক্ষরমালা -২

এই সব প্রাচীন জটিলতায়
পথগুলো একা হয়ে গেলে
করুন মুখে দাঁড়িয়ে থাকে
কিছু কচি সোনা ভোর
আলু থালু শিথান।
আচ্ছন্ন অন্ধকারে ওপাশের দাওয়ায়
বিপন্ন জলের দাগ লেগে থাকে
বোধের গোঙ্গারানি ছুঁতে পারে না
যথাযথ শব্দমালা।

অথচ
বিস্মিত চোখ সামাজিক আলোয় দেখে
মুঁচড়ে পড়া ছিন্নভিন্ন হৃদপিণ্ড
পরিপাটি পোশাকে ঠিক হেঁটে চলে যায়—

 

অ-কবিতা

অবিখ্যাত পংতিমালায়
সাজানো ছিল নির্বোধ অক্ষর।
অ-কবি আর কবিতায় বিশেষত্ব হীন
বিবর্ণ আর অ-গভিরের
দহন নিয়ে উঠে আসে বোকা সন্দেহ।
সেই সব কাল কাল অক্ষর জুড়ে
ঝড়-জল , রোদ -তাপ
নির্বিবাদে এসে চলে যায়।
তা নিয়ে দাম্ভিক কবিদল ঘোষণা পত্রে
তলে ধরেন বহু কৌণিক তাৎপর্যের
বাতিল সমাচার।

তৌহীদা ইয়াকুব। কবি। জন্ম- ১৫ই মে ১৯৬৯। বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার ভুঞাপুর উপজেলায়। বাবা ইয়াকুব আলি তালুকদার, সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন। মা ছিলেন গৃহিনী। চার ভাই বোনের মধ্যে তিনি ৩য়। ছোট বেলা থেকেই লিখছেন। তবে প্রকাশে একেবারেই অনিচ্ছুক সবসময়। ফেসবুকে নিজের স্ট্যাটাস এ...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..