নবনী‌তা

রিনা রাণী দাস
কবিতা
Bengali
নবনী‌তা

নবনী‌তা

উৎসর্গ- নবনীতা দেব সেন

‘প্রথম প্রত্যয়’ থেকে খুজেঁ নি‌লে চাঁদ
শুরু আলো-অ‌ভিসার। সতেরো বছর!
সুদ জমেছে সঞ্চয়ী ‘ভালোবাসা’ ‘পর
হঠাৎ আঁধারে খেলে বিচ্ছেদের সাধ।

কলক‌াতা কোল জুড়ে এলো সাবালক
‘আ‌মি, অনুপম’। পদ্য…গদ্যের বারান্দা
পেরিয়ে ‌সমুদ্র অ‌ব্দি খুঁজে পায় বোদ্ধা?
দং‌শিত বিবেক তোলে বিষ, হেমলক।

রস, কষ, বুলবুল, সিঙ্গারা-মা‌নিক-
‌মোস্তানি বিকেল চারা খু‌লে নেয় ছাল,
সমকামী-রৌদ্র-তা‌পে খুঁদ কু‌ঁড়ো চাল
‘ক‌বি চন্দ্রাবতী’ আলো, করে ঝিক‌মিক।

একা‌শি বছর গেল ‘অমর্ত্য’ ব্যথায়…
মর্ত্যের সৌন্দর্য্য ছেড়ে একা ও…বেলায়।

 

ক‌বিতার সন্ধান

এক‌টি____
প্রে‌মের ক‌বিতার জন্য সারা রাত…
মমতাময়ী চাঁদ ছোঁয়া ছোঁয়া আ‌লো‌তে
‌ভি‌জে যে‌তে চে‌য়ে‌ছি___মন্থ‌নের সু‌খ;

‌সে আস‌বে ব‌লেই…স্বচ্ছ শি‌শি‌রের
স্বমেহন ফোঁটার উ‌ত্তেজনা নি‌য়ে___
অধীর আগ্র‌হে খুঁ‌ড়ে তু‌লে‌ছি দুখ।

‌কিন্তু সে আ‌সে না, হিজাবের আড়া‌লে
লজ্জা মু‌খে হা‌সে। তারা‌-মিছিলও গে‌ছে
শব্দ ও ভাষার ধুঁদুল সন্ধ্যায়;

এখনও ফে‌রে‌নি সে। দূ‌রের কো‌নো গাঁয়ে
‌জৈগু‌নের পুঁ‌থি পা‌ঠ নি‌য়ে ব্যস্ত…
ক‌বির অ‌স্থির মন শূন্যতায়।

‌কোজা‌গরী রা‌তের মতন ব‌সে আ‌ছি,
কখন আস‌বে সে? হৃদয় উ‌ত্থিত
রক্ত পান করে নেকাব খো‌লে কি তা?

তারা-‌মি‌ছিল এসে শরী‌রের ভিতর
‌ঢেউ তো‌লে আ‌লোক র‌শ্মির ঝলক,
অম‌নি ফু‌টে ওঠে নশ্বর ক‌বিতা।

তু‌মি, সে তু‌মিময়! ক‌বিতার শরীর ছুঁ‌য়ে দে‌খি প্রে‌মিক… পৌরুষ।

পয়ার ভাঙ‌ছে

সোনার ক‌লসে পু‌জো ‘মাহ্ এ ভাদর’
‌.                     চৈতালী আগুন বিঁ‌ড়ে ডাহুকী আদর।

‌পিং পং বল দো‌লে ম‌নের ভিতর
.                          পাকা-কাঁচা ব্যথা সয় হলুদ ইতর।

কলম-কলস পে‌টে জ‌লের অভাব
.                      জল প‌ড়ে পাতা ন‌ড়ে’ ক‌বির স্বভাব।

আঙুলের ডগা থে‌কে বিনয়ী হাজার
.                 উঁ‌কি মা‌রে, ছোঁ ডানায় পগা‌রের পাড়।

দ‌মে দ‌মে ক‌মে যায় আয়ুর সকাল
.              মায়া আর মোহ ছা‌ড়ে গোধূলী বিকাল।

‌নিভু নিভু সন্ধ্যাবা‌তি জাগায় আশার
.                     ছলনা, প্রভুর কিনা জানে না আঁধার।

‌দিন শে‌ষে জীবন কি খাঁ‌টিয়ার সাজ
.              সাদা থা‌নে কাঁথা মু‌ড়ে সাঁনাই‌য়ে রাজ।

কাজল ম‌ণির কো‌ণে আকাশ ঘু‌মি‌য়ে
.                    মেঘ না‌মে তু‌লো‌ হ‌য়ে দিগন্ত ফু‌পি‌য়ে।

ছক্কায় হা‌রি‌য়ে গেল ব‌লের আকার
.                       পাটাতন নীলাম্বর কেঁ‌দে কু‌টে সার।

ব্যথার পাখায় হাওয়া বেদম পিটায়
.                         বেলুন ফু‌টোয় কাঁ‌দে কবরের ভিটা।

 

রিনা রাণী দাস। কবি। দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে বসবাস করেন।

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..