নিয়ম ভাঙার অগোচরে

শ্বেতা সরকার
কবিতা
Bengali
নিয়ম ভাঙার অগোচরে

নিয়ম ভাঙার অগোচরে

লুকিয়ে থাকে সব আশারাই
গহন মনের অন্ধকারে,
তাইতো আলো জ্বলেই চলে
নিয়ম ভাঙার অগোচরে।
জোনাক জ্বলে ঝিকমিকিয়ে
আঁধার ভরা হীরের কুচি,
মন হলো যে ছন্নছাড়া
ভাঙুক তবে সমাজ শুচি।
নিয়ন আলোয় চোখ ভরিয়ে
আমরা সবাই তাসের প্রজা,
নিয়ম মানা চলন বলন
মন কুঠুরির বন্ধ দরজা।
আমরা চলো বাঁধ ভেঙে দিই
স্থবির সমাজ চমকে উঠুক,
মনের গভীর অভিসারে
জীর্ণ যতো আগল ভাঙুক।

সুগন্ধী ভালোবাসা

আমার কোনো দাবী নেই,
শুধু আছে সুগন্ধী ভালোবাসা।
দমবন্ধ হাঁসফাঁসে তপ্ত বৈশাখে
রুমালে ভরে রেখে দিই তোমার পকেটে।
মাঝেমাঝে সুগন্ধ নাও তুমি,
মুছে নাও ঘামভেজা কপাল ঘাড়,
আমি ভরে উঠি মুহূর্তের ছোঁয়ায়।
তারপর হারিয়ে যাই অনু পরমাণুতে।
পরবর্তী তপ্ত বৈশাখে নবজন্মের প্রতীক্ষায়।

সুখ বাঁধা শিকলে

টিকটিক টিকটিক সময়ের ছন্দে,
ছকবাঁধা দিন চলে ঠিকঠিক,
হৃদয়ের কাঁটাছেঁড়া নিয়মের দ্বন্দ্বে।

হাতছানি দেয় মন মেঘজমা বিকেলে,
ডাক দেয় লুডোছক নদীতীর প্রিয়বই,
সংসারী সাতপাকে সুখবাঁধা শিকলে।

বড়ো দায় বড়ো হয়ে ঝিঙেফুল সইরে,
নিজেকে হারিয়ে তুইও খুঁজিস সুখ,
একমুঠো শৈশব আজ খুঁজে ফিরিরে।

কাগজের নৌকাটা আজ খুব দামী,
জীবন নিতে চায় মুহূর্তের স্বপ্নশ্বাস,
ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে হৃদয়ের বধ্যভূমি।

মুখোমুখি

প্রতি মুহূর্তে রক্তস্রোতে মিশে যাও তুমি,
বিশুদ্ধ প্রাণবায়ুর মতো।
প্রতিটি স্পন্দিত কোষে নিঃশব্দে পুড়ি আমি।
পরিশুদ্ধ হই প্রতি ছন্দে।
নিত্যদিনের ভালো থাকার মুখোশ বদলাতে বদলাতে,
ক্লান্ত আমি তোমার সম্মুখে।
নিরাবরণ…. নিরাভরণ….
নেই মুখোশের কোনো প্রয়োজন।
তোমার সমুখে শুধুই আমি।
শুধুই আমার বেঁচে থাকার আর্তিটুকু নিয়ে,
ধিকধিক করে জ্বলে ওঠা অদম্য স্বত্বা আমার।

শ্বেতা সরকার। জন্ম ১৯৭৮ সালের ফেব্রুয়ারি। স্থান, বাবার কর্মস্থল টিকিয়াপাড়া রেল কোয়াটার, হাওড়া,বাংলা, ভারত। পাড়ার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠ শেষ করে হাওড়া নরসিংহ কলেজ থেকে বায়ো-সায়েন্সে স্নাতক। ছোট বেলা থেকেই নাচ,গান, আবৃত্তি, ছবি আঁকা, ফটোগ্রাফিতে ছিল শখ। বিবাহসূত্রে খড়্গপুরের বাসিন্দা। আঞ্চলিক...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ