নীলাম্বরী স্মৃতি

তপনকান্তি মুখার্জি
কবিতা
Bengali
নীলাম্বরী স্মৃতি

এখনও বর্ষা এলে

এখনও বর্ষা এলে স্মৃতির ভিতর আগুন খেলা করে,
সময় ডানা মেলে
দিগন্তে উড়ে যায় শ্যাওলা ধরা বকের মতো।

এখনও বর্ষা এলে ধূসর কোষেরা লকগেট খোলে,
গল্পের জলে ভাসে
বিশ্বাস আর বিশ্বাসভঙ্গের স্মৃতিমেদুরতা।

এখনও বর্ষা এলে মনের আকাশে ডুবন্ত সূর্য আলো ছড়ায়,
কালো মেঘে রোদ হেসে
রামধনু খেলা করে শ্রাবণের বুকের কোণায়।

ভাবনার জন্ম – মৃত্যু

সুষুপ্তির রেশে রেশে ভেসে ওঠে তোমার মুখ,
শুরু হয় চিন্তা , একের পর এক ভ্রূণহত্যা।
ঝাঁ ঝাঁ করে মাথার ভিতর,
চিনচিন করে ওঠে পাঁজর,
জলপ্রপাত নামে মনের অন্দরমহল থেকে।
উঠবো উঠবো ভাবুক সূর্যের মরা আলোয়
হালকা হই শেষমেশ।
আবার অন্য ভোরে , অন্য হাওয়ার নতুন গন্ধে
ভাব্নারা জন্ম নেয় একই ছাঁচে।
ভাবনাগুলো ঝাঁপিতে নিয়ে
ঘুরিফিরি সেই এক জীবন ধরে।

 

নীলাম্বরী স্মৃতি

হলুদলাগা সময়ের গায়ে খসখস শব্দ করে
নীলাম্বরী স্মৃতি।
গর্ভজলে ভিজে গাছেরা হয়ে ওঠে পান্থপাদপ,
কাকেরা সারস।
আকাশ আর দিগন্তের নিবিড় সঙ্গমে
সব ধ্বনি হয়ে যায় নিষ্পন্দ
বিকেলের মিয়ানো আলোয়।
কালো ঝুলের মতো ঝোলে মেঘ, ঝোলে মন।
মস্তিষ্কের দরজা বন্ধ হয় মধ্যযামের ধারাপতনে।
ভিজতে ভিজতে গভীরতা খোঁজে মীনাক্ষীরা,
শুশুকের মতো ভাসে স্মৃতি মেদুর আলোয়।

 

নষ্ট সন্ধ্যা

মনের আকাশে সূর্য ওঠেনি বহুযুগ,
রাজত্ব করছে শুধু মেঘ আর বৃষ্টি।
ভিজতে ভিজতে এখন আমি অর্পিত প্রাচীনে।
অবিরাম ধারাপতনের কারণে দরজা বন্ধ।
শব্দভ্রমে যাকে আমি অক্ষর বলে ভেবেছি
তা শেষটান দিয়ে প্রলাপ বকে যাচ্ছে।
এই নষ্টসন্ধ্যায় এখন কি নির্মম হওয়া উচিত?

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..