প্রসববেদনা

শান্তনু পাত্র
কবিতা
Bengali
প্রসববেদনা

প্রতিবেশী

অপেক্ষা ছিঁড়ে ছিঁড়ে
তুমুল বর্ষা প্রেমে
মেঘ নেমে আসে মাটির উপর

প্রাচুর্য হারিয়ে যায় একসময়

কাঁকর বিছানো পথে
অজান্তেই ঝরে গেল
প্রতিশ্রুতি, পাতাদের নামে…

বৃষ্টি, তুমি তো শিকড়ের প্রতিবেশী…

 

সন্ধ্যারাগ

ফিসফাস গল্পেরা বিচ্ছেদ চেয়ে
ঝরে পড়ে; কত সহজ, সাবলীল
বৃষ্টি ধুয়ে দেয়, পায়ের পাতা
ফেলে আসা জলছাপ।

দূর থেকে দেখি, নীলচোখ
পর্দার আড়ালে, আত্মগোপন
ক্রমশ ক্ষয়ে যাওয়া উৎসমুখ
ব্যথাগুলি খুলে রাখি বিছানায়।

নিরাভরণ, বিবর্ণ পাতা উড়ে এলে
হারিয়ে যাওয়া যাবতীয় আলোয়
পুরানো চিঠিগুলি পড়ে নিই
ঢেউয়ের খুব কাছে বসে;
প্রতিটি দিনের শেষে, গুটিগুটি পায়ে
সন্ধ্যা নেমে আসে।

 

প্রসববেদনা

এসো, সূর্যের আলো থাকতে থাকতেই
আমরা জেগে উঠি
ঘুম থেকে টেনে তুলি আত্মাকে।

কোনো আলপথ নেই নিজেকে ছড়িয়ে দেবার
পায়ে পায়ে জড়িয়েছে লজ্জা।

তবুও চিৎকার করে বলি,—
হে অনন্ত যৌবনা পৃথ্বী,
হে গর্ভিণী মৃত্তিকা,
এবার প্রসববেদনা উঠুক।

মুক্তধারা

পিতৃত্বের স্বাদ গুনে গুনে
আমিও পাখির মতো
কচি কচি কান্না শুনে শুনে
বৃষ্টির ভেতর সাঁতরাতে সাঁতরাতে
আমি কি পুরুষ হব?

আমি আশ্রমে যাবো। সেই আশ্রম
যেখানে সিংহ ও শিশু একসাথে খেলা করে

মাছের চোখের মতো রোমাঞ্চকর বিকেল
একতার আমাকে বাঁধতে পারেনি

শান্তনু পাত্র। কবি। জন্ম ভারতের পশ্চিমবঙ্গরাজ্যের অন্তর্গত বাঁকুড়া জেলার মুচডাঙ্গা গ্রামে, ১৩ ই অক্টোবর ১৯৮৪ সালে। শূন্য দশক থেকেই লেখালেখি শুরু। লেখালিখির পাশাপাশি তিনি 'ঢলকিশোর' নামে একটি সাহিত্য পত্রিকা সম্পাদনার সাথে যুক্ত। প্রকাশিত বই: চারটি। 'জাতিস্মর' (২০১৭), 'জিরো গ্র‍্যাভিটি' (২০১৮), 'সংসার...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

প্রতিভাস

প্রতিভাস

স্পষ্টতা অন্ধকারের মতো স্পষ্টতা আলোর মধ্যগগনে নেই। উত্তাপে ঝলসে যাওয়া চোখে শীতলপাটি বিছিয়ে দেয় রাত…..

চিঠি

ক্ষোভ রোদের দোকানি হয়ে, ছুঁয়ে গ্যাছি দূর পরবাস আলোর ক্রেতারা দেখে, শূন্য ঝুলি খালি সর্বনাশ।…..