বসন্তপঞ্চমী

অন্তরা দাঁ
কবিতা
Bengali
বসন্তপঞ্চমী

বসন্তপঞ্চমী

মেঘ জমেছে আকাশপাড়ার নীলে
আটকেছে মন শ্যাম্পু করা চুলে
গান বেজেছে মাইকে তারস্বরে
অঞ্জলি’তে আড়চোখে চোখ পড়ে
আটপৌরে হলদে শাড়ির ভাঁজে
চড়াই-দুপুর মন ছটফট কাজে

সাঁঝবিকালে গলি’র মোড়ে তুমি
ওগো, আমার বসন্তপঞ্চমী
দেখে রাখছি সরস্বতীর দিনে
পলাশ রঙে নেব’ই তোমায় চিনে!

আদর

এক গভীর ছোঁয়াচে অসুখের নাম ভালোবাসা
কারসেনোজোনিক গ্রোথ
ধরা পড়া’র আগে থেকেই ছড়িয়েছে
তার শেকড়-বাকড়

অপেক্ষা শুধু ফুরিয়ে যাওয়ার
শুধু সেই ক্যাকটাসে
ফুটে ওঠে লালফুল!
সেই রক্তিম মরণের নাম —আদর!

 

ঘর এঁকেছি, চৌকাঠ আঁকিনি

তুমি আমায় কাগজ-কলম দিলে
জল-রঙ, মোম-রঙ, আরও কত কী
ইজেল দিলে যেন একখানা আকাশ
রোজ সেখানে কত কী যে আঁকছি
একটু একটু করে!

তোমার প্রিয় গন্ধরাজ ফুলে’র গাছ
লাল-সুড়কি’র রাস্তা
নদী এক ঝিরঝিরে
সকাল-বিকেল সুখ-তুলি’তে ইচ্ছে-রঙ
আঁকতে আঁকতে পেরিয়েছে অযুত বছর
আমার সারাশরীরে ক্লান্তি’র উইঢিবি!

যখন ঘর আঁকলাম, খোলা জানলা
কুলুঙ্গিতে গীতবিতান
একখানি তানপুরা আমরা কোরাস গাইবো ব’লে!
দু’হাত বাড়িয়ে ডেকেছি তোমায়
‘কই এসো ‘?

তুমি অন্যঘরের সিলিং ফ্যানে
আটকেছো চোখ যখন তখন।
অথচ,
তোমার হোঁচট লাগবে বলে আমি
চৌকাঠ আঁকিনি।

 

কাম

তুলসীতলায় নিষ্কাম প্রদীপ জ্বেলে
পুন্যবতী’র দুচোখ জলে ভরে
‘আমার সন্তান যেন থাকে দুধে-ভাতে ‘
লালপেড়ে পাটের শাড়ি’তে ঢাকা যায় এত বড় কামনা?

অথচ দ্যাখো, টকটকে লাল শাড়ি জড়িয়ে
যে মেয়েটা পেটের দায়ে ঠেস দিয়েছে ল্যাম্পপোস্টে
সে ভদ্রসমাজের চোখে’র বালি!

ক্ষুৎপিপাসা কাম বইকী!

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

ফেরা

ফেরা

ফেরা অনেক দিন আসিনি তোমার চোখের কোণে, বুকের পাশে, নিঃশ্বাসের চারপাশে। ভেবো না আমি পথ…..