বহুদূর হাঁটা যায়

তনিমা হাজরা
কবিতা
Bengali
বহুদূর হাঁটা যায়

যুদ্ধে যাবে, যুদ্ধে যাবে

আজকের বৃষ্টিটা ঠিক মায়ের মতন
অনেক খানি তাপের প’রে
একটু আরাম।
একা সে মেয়েটি তার ক্লান্ত চুলে লাগায় তেল,
স্নানঘরে চান ইচ্ছেমতন,
জীবনের ঘনায়মান অনেক মেঘ,
ছুরি দিয়ে কাটছে ফেলে ঘোর আবেগ,
যুদ্ধে যাবে, যুদ্ধে যাবে।

নিজের মতো নিজের পায়ে পেশীর জোর,
শিল নোড়াতে থেঁতলে যাওয়া সে অন্তর,
কুড়িয়ে নিলো, গুটিয়ে নিলো
যুদ্ধে যাবে,যুদ্ধে যাবে।

ও মেয়ে তুই খুব হেসেছিস, কিংবা চুপ,
বুকের ভেতর জোয়ার-ভাটা খেলছে খুব,
পাড় ভাঙ্গছে, জমছে পলি, ঢেউয়ের নাদ,
যুদ্ধে যাবে,যুদ্ধে যাবে।

যুদ্ধে যাবে, যুদ্ধে যাবে তাই তো এখন শক্ত মন,
মনের ভেতর, বৃষ্টিধারায় অবগাহন,
কি রাখবে আর কি হারাবে পায়ের নীচে,
কি ছেড়ে সে এলো দূরে হেঁটে পিছে,
বারোহাতি মাথাউঁচু মনের জোর,
সুখ পেরিয়ে মানুষ হয়ে বাঁচতে চাওয়ার
সাধগুলো সব মাঠ পেরিয়ে হেঁটে হেঁটে আসছে তোর।

কোলাহল নয়

কোলাহল নয়, নির্জন ভালো লাগে,
মুষ্টিবদ্ধ কিছু প্রকৃত স্বজন,
কিছু একান্ত হৃদয়ের কথা, কিছু বিশ্রামের স্বল্প
আয়োজন।

কিছু কদম্ব ঘ্রাণ, বরষামুখর আকাশের পাতে,
কিছু বিপ্লবী স্বরলিপি এস্রাজে নখের আঘাতে,
তুমিও কেঁপে ওঠো অনুভবে,
আমিও কেঁদে উঠি খুব,
অবাধ্য হংসকেলি আস্নানে মেতে দিলো ডুব।

ধুয়ে যায় গার্হস্থ্য পাপ, ধুয়ে যায় স্থবির বয়সভার,
এই মগ্ন সমারোহে দীপাধারে প্রজ্বলিত থাকে
বাঁচবার নূন্যতম মৌলিক অধিকার।

ভালবাসার কাছে

ভালবাসার কাছে নতজানু হই,
ভালবাসা সে তো চায় নি কিছুই,
শুধুমাত্র দিয়েছে মুক্তধারা,
বহুদূর উড়ে এসে ডানার বিরাম,
ভালবাসা, আমি তোমার কাছে আজ
উজাড় করে নিজেকে দিলাম।

সারিবদ্ধ দায়, বাসনা বিরামে যায়,
শুধু প্রতিশ্রুতি গচ্ছিত থাকে,
ভালোবাসা, সে তো একান্তই নিয়েছে আমাকে,
ভিড়ের ক্লান্তি পেরিয়ে আসি
তার সম্মুখে এসে মাথা উঁচু করে দাঁড়াই,
এ ঘোর সঙ্কটে সে ছাড়া যে আর বাতি নাই,
কোনো বাতি নাই।

বহুদূর হাঁটা যায়

যার কাছে ভাণ নেই,
তার কাছে ফুল হই,
ফুটে উঠি সহজেই।

শব্দের নির্ঘোষ, নীরবের অর্থ
চুলচেরা হিসেবের সুদকষা শর্ত।

ভলক্যানো দোষারোপ,
আগলানো গন্ডি,
ঠিক ঠিক পা মেপে
চড়া পাকদণ্ডী।

নেই তাই হাঁটা যায়
বহুদূর হাঁটা যায়।

তনিমা হাজরা। কবি। জন্ম ১৯৬৮ সালের ২৪শে ডিসেম্বর, ভারতের পশ্চিমবঙ্গরাজ্যের বাঁকুড়ায়। কবিতা ছাড়াও লেখেন অনুগল্প, রম্যরচনা, প্রবন্ধ, বড়োগল্প, ভ্রমণ কাহিনী। বিভিন্ন লিটিল ম্যাগাজিনে নিয়মিত তাঁর লেখা প্রকাশিত হয়।

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..