বিপ্রতীপ

শ্রীপর্ণা গঙ্গোপাধ্যায়
কবিতা
Bengali
বিপ্রতীপ

অনলাইন

কোথাও কেউ আমায় ছুঁয়ে আছ।
আমার ছোট্টবেলার বন্ধু ,রেশম বিকেল,
পুতুলের রাংতা সাজ ,সবুজ একটা মাঠ।
আমার মেসেঞ্জারে ছোট্ট একটা সবুজ বিন্দু হয়ে
ছুঁয়ে আছ আমাকে ।দেশে ও দেশের বাইরে
তুমি আমায় আলগোছে বলে যাও
একবিন্দু সবুজ হয়ে আমার বুকেই আছ।

সম্পূর্ণ অপরিচিত কেউ ,যার আঙুলগুলো
আমি কোনদিন দেখিনি ,হয়তো বা কখনও
দেখবনা সেও সেই অচেনা আঙুলে বল
তোমায় ছুঁয়ে আছি , একা নও তুমি।
সামওয়ান ইজ রাইটিং – ‘শুভ জন্মদিন ‘।
অনলাইন!

 

ফল

হৃদয়ের এককোণে টুকটুকে লাল রঙ ফল ফলে আছে ।
ও টুকুতে ধানজমি সরস সজল হয়
দুধ জমে ধানের শিষের গায় ,
পাখি ঠোঁটে খড়কুটো বোনে।
ও টুকুতে পাতা ঝরে চৈত্র বাতাসে
সন্ধ্যাকালে শূন্যডালে বেনেবৌ একলা দাঁড়ায় ।
ও টুকুতে কি আর এমন হয় ?
নদী শুধু বাঁক নেয় ,তীরে বালি জমে।
তুমিও তো দেখেছ হৃদয় খুঁড়ে
ওই টুকু দিগন্ত দিয়েছে হাতে এনে।
তবুও কেবলি পা ফেলি
দূর থেকে দূরে ,আরো দূরে
পদচিহ্ন সরে সরে যায় ।
অস্তরাগ গোধূলি বেলায় তারা ফোটে
ঠিক সেইখানে ।
সেখানে দাঁড়িয়ে থাকে রাত ,
তারপর জানলারা থাকে ।জানলায় নিখুঁত গরাদ।
তার মাঝে পঞ্চমীর চাঁদ এ শরীরে লাল রঙ
ফল বয়ে আনে ।

 

বিপ্রতীপ

কোন সাদা ফুলকে অণুবীক্ষণ যন্ত্রের নীচে রাখলে
গুঁড়ো গুঁড়ো রাত পাওয়া যাবে ।
যেরকম কোন বাস্তুহারা মানুষের আঙুলে আঙুলে
লেগে থাকে গুঁড়ো গুঁড়ো বিছানা বালিশ ।
ডাল ভাত তরকারি আর কিছু নুন ।
সেরকমই ঝকঝকে হাসির বিশ্লেষণে
কান্নাজল বাষ্পীভূত হয়।

 

শোক

প্রতিটি কান্নার শেষে
ভোররাতে ঘাট জেগে ওঠে।
সেখানে ঘুমিয়ে নেয় শোক ।
তার দু ঠোঁটের মাঝের বাতাসটুকু
ক্রমাগত ওঠাপড়া করে।
ওর মাঝে এসে বসে একটি জিজ্ঞাসাচিহ্ন ,
বয়ে আনা পলি ,আর অবিভাজ্য
দু একটি বালি।

শ্রীপর্ণা গঙ্গোপাধ্যায়। কবি ও গবেষক। জন্ম ভারতের পাশ্চিমবঙ্গরাজ্যের হাওড়া, বৈবাহিকসূত্রে শান্তিনিকেতনের বাসিন্দা। শ্রীপর্ণা লেখাপড়া করেছেন কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে স্নাতক ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর। এরপর পি,এইচডি করেছেন বাংলা সাহিত্যে। কবিতা তাঁর আশৈশবের সঙ্গী হলেও সাম্প্রতিককালে তিনি লেখালিখির জগতে পা...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..