বিপ্লব দীর্ঘজীবী হোক

আলী রেজা
কবিতা
Bengali
বিপ্লব দীর্ঘজীবী হোক

বিপ্লব দীর্ঘজীবী হোক

লোলচর্ম বৃদ্ধের হাড়ের ভিতরে
খসে পড়া পাতার আহাজারি,
আঁঠালো উদ্বেগ কাটিয়ে পাতাঝরার দিনে
কুয়াশাভেজা ধুমায়িত চায়ে আয়েশি
ফুঁ দিয়ে চুমুক দিতেই চোখে পড়ে
বারান্দায় একজোড়া রতিপ্রিয় চড়ুই
তারাও জানে অবসরের বিভীষিকা।
ব্যালকনি থেকে অফিসগামী নারীর নিতম্ব দোলন দেখি,
সামনের বারান্দায় দেখি গামছার আড়ালে লাল ব্রা, আমিও
একদিন লাল ঝান্ডা উড়িয়ে মিছিলে গেছিলাম;
তোমার বুনো ঘামে ভেজা আঁচল দিয়ে
মুখ মুছে বলেছিলাম, “বিপ্লব দীর্ঘজীবী হোক”।

 

কবিতার কথা বলি

পলেস্তারা খসে পড়া
বগলের ঝুরঝুরে ঘামে
পাঁজরের চুরমার দুঃখ
ভেঙ্গে এসো খিদের ভিতরে
কবিতার কথা বলি
বাজারের ব্যাগে ভরে
তাকে সঙ্গে নিয়ে গেছি
লেবুগন্ধ চুলের অরণ্যে
রাত গাঢ় হলে
পাতার ভঙ্গি করে বলি
স্পর্শে কি সুখ
আহা কি সুখ মরি মরি

কবি

দাঁড়কাকের চোখে মায়াবী রেখার কাজল নেই,
উত্তরাধুনিক কবিদের মত কুতর্কে মেতে থাকে,
তাদের কবিতা চেসিস ভাঙ্গা ট্রাকে
রোঁয়া উঠা কুকুরের দুর্বোধ্য ডাক।
তারা পাপ ও দুঃখবোধের একছত্র বেপারী,
ঠোঁটের এ্যজফল্টে ধাবমান শূন্যতা
নিতম্বের গাঢ় মাংসের মত শব্দের চোরাস্রোত,
পেগ পেগ মদে আগুন নেভায়, জলের মিশ্রণে
স্বাদ বদলে নেয়, ভুল তালে বাজায় চুম্বনের সুর।
তুমি যে হাত ধরে আছ সে তোমার প্রিয়ংবদা নয়
সেও একজন কবি এই মুহুর্তে লুপ্ত মাতাল
যে কথনো নিজের কবিতা মুখস্ত বলতে পারে না।

আলী রেজা। জন্ম ১৯৫৭ খ্রিস্টাব্দে। মুক্তিযুদ্ধে আলোড়িত কবি। সত্তরের দশকে ছোট কাগজে লেখালেখি তারপর যুদ্ধ, অনটন, আবারো বামপন্থার লড়াই - এগুলোতে জড়িয়ে দীর্ঘ বিরতি। ফেসবুকে পুনরায় পুরানো ভালবাসার চাষবাস। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ একটি, 'পাথরের গুহা'। কবি আলী রেজা মনে করেন, মানুষের...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..