মহাপুরুষ

রাজীব মৌলিক
কবিতা
Bengali
মহাপুরুষ

লালন

ফকিরের মুখ থেকে যেভাবে লালন ঝরছে
মনে হচ্ছে আজ লালনের জন্মদিন
অথচ যার শোক পালন করে ফকির বেঁচে আছে
সে লালনের পত্নী নয়
সে লালনের প্রেমিকা নয়
সে ফকিরেরও বর্তমান নয়
সে কেবল অবতার,
বারে বারে আসে যুগ থেকে যুগান্তরে
ফকিরকে আরও ফকির করতে …

 

পাঠকপ্রিয়তা

যেভাবে পাঠকেরা কবিতা পড়তে চাইছে
যেভাবে সম্পাদকেরা লিটিল ম্যাগের ভবিষ্যৎ গড়ছে
ভয় হয় খুব ভয় হয়
কোন দিন শোনা যাবে
কবিতা আর কবিকে চাইছে না
কবিও রাতজেগে গালাগাল সহ্য করছে না,
সকলের মুখ থেকে তখন একটাই হাহাকার বেরবে
‘আমাদের পুরানো কবি-সম্পাদককে ফেরত চাই’

 

পাখিদের রিংটোন

ভোর হলে শোনা যায় পাখিদের রিংটোন
কেয়াপাতার ফাঁকফোকরে স্বর্গের শপিংমল
ডিউটি শেষ করা রাতজাগা তারাদল
সোনালী আবেশ নিয়ে ডাকছে ঘোঁচনডাল।
জলপরি সোনাজল উবছে বাতাসে
দোল খায় সোনাব্যাঙ পদ্মপাতার কাঁথাতে।
কিচিরমিচির পুঁইপোনা বাচ্চাকাচ্চা
হা করে চেয়ে আছে খেতে চায় নাস্তা।
গোয়াল থেকে টুনটুনি ময়না ফিঙে
উড়ে যায় লাউফুলে নতুবা জিঙে
যদি পায় ঘাসফড়িঙ কিম্বা কেঁচো
জমজমাট ভূরিভোজ ডেকে বলে পেঁচো

অন্ধের ভায়োলিন

আমি হলফ করতে বলতে পারি, মানুষ
এখন অন্ধকারকে ভালবাসতে শিখেছে, আপাদমস্তক
শুঁয়োপোকার অনুকরণে রিজার্ভ ব্যাংকে জমা রেখেছে,সমস্ত
অঙ্গপতঙ্গের স্থান পরিবর্তন হয়েছে,চোখের
স্থানে এসেছে কালো ছায়া,মুখের
স্থানে এসেছে ভাঙাচোরা বুক,মেরুদণ্ডের
স্থানে বালির ঢিবি,হয়তো
এমন গল্পের মুখোমুখি হতে হবে পরবর্তীদের,একদা
পৃথিবীতে জন্তুজানোয়ার ছাড়া ছায়া ছিলনা,সেদিন
অন্ধের ভায়োলিন বেজে উঠবে,আর
বন্যজন্তুরা খুঁজে পাবে সুবিশাল অরণ্য

মহাপুরুষ

তোমরা মহাপুরুষ হওয়ার চেয়ে
ঢের ভালো হত যদি কুমির হতে
এখন ধর্মেরঢাক আকাশে বাজে
রক্তের রঙে শুয়ে থাকে রাজনীতি
পাপীরা মন্দিরে যায় তোমাকে ডাকে
তুমি সাড়া দাও না কেন?
গৌরাঙ্গ প্রেম কি তোমার নাই?
তুমি মহাপুরুষ তাকেও মহাপুরুষত্ব দাও…

রাজীব মৌলিক। কবি। জন্ম ভারতের পশ্চিমবঙ্গরাজ্যে।

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

প্রতিভাস

প্রতিভাস

স্পষ্টতা অন্ধকারের মতো স্পষ্টতা আলোর মধ্যগগনে নেই। উত্তাপে ঝলসে যাওয়া চোখে শীতলপাটি বিছিয়ে দেয় রাত…..

চিঠি

ক্ষোভ রোদের দোকানি হয়ে, ছুঁয়ে গ্যাছি দূর পরবাস আলোর ক্রেতারা দেখে, শূন্য ঝুলি খালি সর্বনাশ।…..