মান ভাঙাবো আমি

শ্বেতা সরকার
কবিতা
Bengali
মান ভাঙাবো আমি

কখনো হয়ত আমি

মুঠোবন্দী পর্নোগ্রাফি বিবেক নিরুদ্দেশ,
ডিপ্রেশনের খাস্তা খাবার আদিম রিপুর দেশ।

সস্তাদরে বিকোয় শরীর ভঙ্গী রকমারি,
চড়ছে পারদ শরীর জুড়ে, চাইযে একটি নারী।

আকণ্ঠ মদ গিললে পরে আরও বেসামাল,
নারী নয় চারপাশে দেখছো শুধুই “মাল”।

ডিপ্রেশনের খাস্তা খাবার, নারী শরীর পাতে,
নমাস অথবা সত্তর কিছুই যায় আসেনা তাতে।

ছুরি কাঁটায় খাবার কাটো চিবিয়ে করো শেষ,
পড়ে থাকা অবশিষ্টের মৃত্যু হলেই বেশ।

তাইতো প্রমাণ লোপাট করতে মৃত্যু উপহার,
পরের দিন হেড লাইনে জ্বলে মোমবাতি আবার।

দেখতে দেখতে ক্লান্ত চোখ এড়িয়ে যেতে চায়,
তিরানব্বই জন প্রতিদিন পালানোর নেই উপায়।

বিবেক বন্দী রিপুর দেশে শুধুই শরীর দামী,
তিরানব্বই এর তালিকায় কখনো হয়ত আমি….।

ভোরের শুকতারা

কেন বারবার নেড়েচেড়ে দেখতে চাও
হৃদয়ের অনুভূতি গুলো।
কেন পেতে চাও বারবার
ভালোবাসার তুচ্ছ প্রমাণ।
বোঝোনা কি তুমি?
খেলতে পারিনা আমি,
নই একদমই ভালো খেলোয়াড়।
তবু খেলতে চেয়ে বারবার,
শুধুই কান্না দিয়েছো মুঠোভরে।
ওগো ভোরের শুকতারা,
চাইনা আমি আলো,
আমার আঁধার ঘরই ভালো,
আঁধারে যে কান্না ঢাকা পড়ে।

মান ভাঙাবো আমি

তোর অভিমানী ঠোঁট বেয়ে সন্ধ্যা নামবে যেদিন,
মেঘ জমে থাকা চোখের কোনে মুক্ত জমবে কি?
সেই মুক্ত কুড়িয়ে কোঁচড়ে ভরবো আমি।
তোর ঠোঁটে এঁকে দেবো টুকরো আদর দামী।
মুঠোভরা বসন্ত দেবো তোকে,
হৃদয় ভরে দেবো ফাগুন নেশা,
তোর অভিমানী মেঘ সরিয়ে দিয়ে,
পলাশ রাঙা ভোরের আলোয় মেশা।

চল তবে

তোর বুকের প্রতি রোমকূপে হিসেবের ধূলোবালি,
চল একদিন দুজনেই খোয়াইয়ের পথে চলি।
মায়াবী চাঁদ মেখে আদুরে নেশাতে সব ভুলি।
ঢলে পড়া দিগন্তে মিশে ঠোঁট ছুঁয়ে ভালোবাসি বলি।
চল তবে, দুজনেই এলোমেলো করি,
সমাজের সব আগলের চোরাবালি।

শ্বেতা সরকার। জন্ম ১৯৭৮ সালের ফেব্রুয়ারি। স্থান, বাবার কর্মস্থল টিকিয়াপাড়া রেল কোয়াটার, হাওড়া,বাংলা, ভারত। পাড়ার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠ শেষ করে হাওড়া নরসিংহ কলেজ থেকে বায়ো-সায়েন্সে স্নাতক। ছোট বেলা থেকেই নাচ,গান, আবৃত্তি, ছবি আঁকা, ফটোগ্রাফিতে ছিল শখ। বিবাহসূত্রে খড়্গপুরের বাসিন্দা। আঞ্চলিক...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..