রেজাউদ্দিন স্টালিন এর গুচ্ছ কবিতা

রেজাউদ্দিন স্টালিন
কবিতা
Balochi
রেজাউদ্দিন স্টালিন এর গুচ্ছ কবিতা

বাল্যশিক্ষা

লেখাপড়া করে যে
গাড়ি ঘোড়া চড়ে সে

এই শ্লোকে সমর্পিত আমরা
বছরের পর বছর গাড়ি ঘোড়া বশ করতে প্রাণপাত
মানুষ হওয়ার চেয়ে গাড়ি হবো
ঘোড়া হবো
আমাদের মা বাবারা জানেন
এই মন্ত্রে উৎকোচ বশীভূত হবেন
এবং উপরয়ালাও
ওখানেইতো বসে আছে গাড়ি
দাঁড়িয়ে আছে ঘোড়া

কোনো হাঁকডাক ছাড়াই আকাশ থেকে ঝরে পড়বে বৃষ্টিবৈভব

দেবতারা বেড়াতে আসবেন
মহাভারত থেকে
ইলিয়াড় অডিসি
রামায়ণ থেকে
বর দেবেন – দুধভাতের বদলে বারবিকিউ -শ্যাম্পেন
বস্ত্রহরণের আনন্দে নাচবে দ্রৌপদীরা

আমরা লেখাপড়া করবো
গাড়ি ঘোড়ায় চড়ে দেখা করতে যাবো -দুর্যোধন জগৎশেঠ রায়বল্লভ
মীরজাফর ঘসেটি বেগমের সাথে

আর মানুষ হবার সব পথ হারিয়ে
অনবরত গাড়ি ঘোড়া দালান কোঠার
জঙ্গলে ঢুকে পড়বো

 

দুরবিন

স্মৃতির অশ্বারোহী ফিরে আসি কাতর শৈশবে
যখন সবকিছু মূল্যবান ছিলো
চিনেবাদাম চকোলেট আইসক্রিম
মেলায় কেনা সবুজ টিয়ে আজো
কাঁধে এসে বসে
ঠোঁটদুটো সেরকমই লাল
গরম জিলাপি জিভ টেনে
লম্বা করে রাখে

পাঁপড় হাসতে হাসতে ভেঙে পড়ে
হাতের তালুতে
পয়সা জমিয়ে কেনা দুরবিন
তাকায় আত্মহারা দিগ্বিদিক
আর আরব্য জিনদের জাদুবলে কি
আশ্চর্য সবকিছু বড় হয়ে যায়
মানুষ- প্রকৃতি
স্মৃতির মহাদেশে সবই বর্তমান
এখনো চাঁদ ঘুমোতে যায়
আমার পকেটে
সূর্য দেরি করে পশ্চিমে ওঠে
আজো পত্রিকার শিরোনামে সাঁতার কাটে বঁড়শিতে গাঁথা সংবাদ
ছাপা হয় নতুন নক্ষত্রে জেসোলিনের
বেতার দুরবিন

কিন্তু আমি খুঁজছি কৈশোরে কেনা
সেই অমোঘ দুরবিন
আবার সবকিছু দেখবো বড় বড়
মানুষ ও প্রকৃতি

 

একদিন আমি- কোনোদিন কেউ

কোনোদিন কেউ হেরে যায় আর
কোনোদিন কেউ জেতে,
একদিন আমি হেরে যাই খুব
শুয়ে থাকি বুক পেতে।

কোনোদিন কেউ কুম্ভকর্ণ
কোনোদিন কেউ জেগে,
একদিন আমি বিনিদ্র থাকি
অতৃপ্ত উদ্বেগে।

কোনোদিন কেউ মরে যায় আর
কোনোদিন বেঁচে ওঠে,
একদিন আমি বেঁচে থাকি আর
মরে যাই সংকটে।

কোনোদিন কেউ নিরুদ্দিষ্ট
একদিন ফিরে আসে,
কোনোদিন আমি সন্তর্পণে
মুখ ঢাকি সন্ত্রাসে।

কোনোদিন কেউ ভেঙে ফেলে ঘর
এলোমেলো পায়ে ফিরি,
একদিন আমি অনুশোচনায়
অনন্ত হারিকিরি।

কোনোদিন কেউ ডিডেলাস হয়
কেউ পিতা ইকারুস,
একদিন আমি কিং সোলোমন
একদিন ইউনুস।

 

দগ্ধ একিলিস

আমি তাকে চিনি তার তারুণ্যের রৌদ্রদিন দেখেছি অনেক অক্ষরের বীজ থেকে শস্যদানা মননভূমিতে পুত্রের প্রতি মাধ্যাকর্ষণ কী অসীম স্ত্রীকে দিয়েছিলো আঙুলের আশ্চর্য চিরুনি তাকে চিনি আবেগের অগ্নিগিরি নির্ভয় উল্কা শলাকা সাপের সঙ্গমে গাঁথা কণ্ঠ গল্পে ঠাসা অন্ধকার মুখভর্তি রাজধানী প্রতিজ্ঞাবদ্ধ বিজ্ঞাপন জীবনের নিজস্ব নদী আছে বালি ও শামুক প্রতিটি ঢেউয়ের বাঁকে ভাঙনের স্বর তাকে চিনি প্রথা ছেঁড়া আগুনের পাখি প্রবাল দুঃখ থেকে জেগে ওঠা দারুচিনি দ্বীপ সর্বনাশ চোখে নিয়ে বসে থাকা দগ্ধ একিলিস

 

বৈপরীত্য

তুমি জেগে থাকতে বললে বর্গির বিরুদ্ধে
আমরা ঘুমিয়ে পড়লাম
যেতে বললে মঙ্গলে
আমরা কাঁথার অমঙ্গলে উড়ে বেড়াতে লাগলাম
দেখিয়ে দিলে রণাঙ্গন
পরিয়ে দিলে হিমালয়ের মুকুট
সব ছুঁড়ে ফেলে আমরা নন্দলাল হলাম
চিনিয়ে দিলে অমৃত
আমরা পাতাল সেঁচে নিয়ে বিষ নিয়ে এলাম
তুমি এনে দিলে স্বাধীনতা
আমরা প্রেমে পড়লাম পরাধীনতার

রেজাউদ্দিন স্টালিন। কবি, লেখক ও টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব। জন্ম ২২শে নভেম্বর, ১৯৬২ বাংলাদেশের যশোর। তিনি আশির দশকের অগ্রগণ্য কবি হিসেবে বিবেচিত। কৈশরেই লেখালেখি শুরু। ১৯৭০ সালে যশোর থেকে প্রকাশিত শতদল পত্রিকায় প্রথম 'শপথ' নামে কবিতা প্রকাশ। তিনি জাতীয় কবি কাজী নজরুল...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..