রেস্তোরাঁ

সুবীর সরকার
কবিতা
Bengali
রেস্তোরাঁ

রেস্তোরাঁ

অলৌকিক রেস্তোরাঁ থেকে বেরিয়ে আবার
হাঁটতে শুরু করলাম আমরা
স্বরবর্ণের মতন সন্ধে নামে আমাদের
শহরে
অসুখ ভুলে যাই
ভালোবাসি পটেটো চিপস

ডাইরিতে বৃষ্টি লিখছেন তুলারাশির
জাতক

 

গেরিলাযুদ্ধ

নিচু হয়ে আসা একটা রাস্তা
বিরল হতে থাকা একটা রাস্তা
ইতিহাসবই থেকে নেমে আসা
গেরিলাযুদ্ধ
দিদির পানের বাটা
ভোতা হয়ে যাওয়া বল্লম
পশমের কম্বল দিয়েই কাটিয়ে দেব দীর্ঘ
শীতকাল
শূণ্য মাঠের ভেতর ম্যাজিক
ম্যাজিকের ভেতর মায়া
ফড়িঙ চতুর বলেই আত্মজীবনী জুড়ে
থাকে
তোমার দিকে শালবন
বাতাস জড়ানো সাঁকো
ট্রিগারহীন বন্দুক হাতে সমবেত
গেরিলারা

 

বৃত্তান্ত

‘এই শীতের ভেতর কি বৃত্তান্ত রেখে গেলে
তুমি’
সেই ডাইনির বিলে ডুবে মরা নুরী পাগলী
গাছে গাছে ঝুলিয়ে রাখা আমাদের
পরমায়ু
এখানে বিস্তারিত হবার মত কোন পরিসর
নেই
বকনা বাছুরের সাথে জমে ওঠে সখ্যতা
আর নখে হলুদ নিয়েই ঘুমিয়ে পড়ে
ডাকপিওন

 

জার্নাল

জল খাবার পর গ্লাস নামিয়ে রাখছেন
টেবিলে
এই প্লাবন ভুলতে বসা জনপদ
রোদের বিস্তার থেকে কেমন গুচ্ছ
শালিখ
ক্যানভাসে পরিসর খুঁজছেন আপনি
পটভূমি পালটে গেলেও
চুপি চুপি বেড়াতে আসে সেই
বুড়ো শেয়াল
সরলরেখার মতো আমাদের সব
দিনকাল
শান্ত সরোবর।
আশটে গন্ধের ফাঁকে গুঁজে দেওয়া
বাক্যবন্ধ

কাহিনি

ইঁদুরের গর্ত থেকে কাহিনি বের করে আনি
উঠোনে ছড়িয়ে থাকা স্মৃতি
কথারা ভিড় জমাচ্ছে গাছের
ছায়ায়

সুবীর সরকার। কবি ও গদ্যকার। জন্ম ও বাস ভারতের পশ্চিমবঙ্গরাজ্যের কোচবিহার। তিনি মূলত নয়ের দশকে লিখতে আসা স্বতন্ত্র উচ্চারণের কবি ও গদ্যকার। এ পর্যন্ত তাঁর লেখা প্রায় ৩০টি বই প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশিত বই: কবিতার বই: 'যাপনচিত্র' (১৯৯৬), 'সাদা ঘোড়া ও লোকপুরণের...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

বেশরম

বেশরম

বেশরম কি কঠিন ছিলো, ডুব সাঁতারের রুদ্ধ দম তোমাকে ভুলেছি ঠিক এক বেশরম- আবার পড়েছি…..

তোমার জন্য

তোমার জন্য

পাষাণের প্রেম বিকট স্তব্ধতায় সুনিপুণ সীমানা প্রাচীর তুলেছ, বেসামাল ভালোবাসার জাগতিক জায়নামাজে। প্রার্থনার গতিরোধ করো…..