শ্বেতা শতাব্দী এষের কবিতা

শ্বেতা শতাব্দী এষ
কবিতা
Bengali
শ্বেতা শতাব্দী এষের কবিতা

মোহ

এক আশ্চর্য আপেল থেকে বের হয়ে আসছে ছুরি

আমার বুক বরাবর-
এ এক অনিঃশেষ অতৃপ্তি- একে একে সব ফুল
ঝরে যাবার পর তবু একটি অন্তিম মাধবীললতার ঘ্রাণে

পৃথিবীতে ঘোর নেমে আসে- আর আমার হৃদয়
মৃত্যুর আঙুল ধরে উচ্চারণ করে- জীবন সুন্দর!

 

দৃশ্যের গভীরে

যেখানে দৃশ্যের অধিক দৃষ্টি যায়
সেখানে তোমাকে দেখি- অজস্র
পাতার বনে ঢেউ খেলে একা
সন্ধ্যা- তোমার জন্ম শহরের পথটিতে
বিপন্নতা নেমে আসে- দাঁড়িয়ে থাকো-
পথ চলো- কোথায় যাও! বন্দর ছেড়ে
জাহাজেরা চলে যায় স্মৃতি পার হয়ে-
যেখানে দূরের গ্রাম ঝাপসা হয়ে আসে
আর তোমার ছায়া জড়িয়ে থাকে
এইসব দৃশ্যেরও অনেক গভীরে!

 

জুগুপ্সা

এই যে ঝা চকচকে অবতল- এখানে মানায় না
নিস্প্রভ সন্ধ্যার ছাতিমের ঘ্রাণ- তবু ঘ্রাণ
সৃষ্টি হয় ফুলের শরীরে-
অনেক দূরের কোনো উঠোনে
এখনো ছড়িয়ে আছে মায়ের আঁচল।

একটা রাজহাঁস একা একা সাঁতরায়-
তার কোনো ডাক নাম নেই- তবু সে ডানায়
মেখে নেয় আদরে পুকুরের জল-

জল মুছে গেলে তার মনে পড়ে যায়
আর কোনো প্রিয়মুখ বাকী নেই-
অধিকার করে যারা ছিল এই মন!

 

কামরাঙ্গা বিকেলে

নিজেকে দেখনি কখনো
কামরাঙ্গা ফুলের বিকেলে
কেমন বিষন্ন গাঢ় চোখ
চেয়ে থাকে নীলের গভীরে-

উড়ে যাওয়া মেঘ থেকে সর
জমে ওঠে রোদের মায়ায়
মুখ দেখতে গেলে পরে নদী
তুলে ধরে দেখায় পাথর!

কামরাঙ্গা ফুল তবু ফোটে
ভালোবেসে পৃথিবীর হৃদয়
যেখানে তোমার বেঁচে থাকা
নিসঙ্গ ঋতুর ভেতর-

 

শরণার্থী

যেন আমি চোখে কিছু দেখতে পাইনা
যেন পৃথিবীতে কোনো শরণার্থী নেই
যেন রাজ পথে ফুটে আছে অগণিত ফুল
অথচ আমি দেখতে পাই না।
হৃদয়ের বধিরতা শোনে
হৃদয়ের অন্ধত্ব জানে এইসব না-দেখার মাঝে
তবু শরণার্থীদের কোনো দেশ থাকে না-
ফুলের পরাগ থেকে উড়ে যাওয়া রেণুর
ব্যক্তিগত আর কোনো বন থাকে না!

শ্বেতা শতাব্দী এষ। কবি। প্রকাশিত বই পাঁচটি। 'অনুসূর্যের গান' (২০১০), 'রোদের পথে ফেরা' (২০১৩), 'বিপরীত দুরবিনে' (২০১৬), 'আলাহিয়ার আয়না' (২০১৭) এবং 'ফিরে যাচ্ছে ফুল' (২০১৯)।

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..