সঙ্গরোধ

কাকন রেজা
কবিতা
Bengali
সঙ্গরোধ

সঙ্গরোধ

কী ভীষণ স্তব্ধতা চারিদিকে
সূর্যটাও যেনো ফিকে,
মানুষেরা ততোধিক
যেনো মৃতের অধিক!
এ কেমন কাল এলো
আমি ভাসি সঙ্গরোধে
তুমি একা জ্বলো।

বেঘর

আমাগো তো ঘর নাই, রমনার ঝোপই আমাগো ঘর
যেইহানে রাইতে আপনেরা আমার বর
আপনেগো ঘর আছে, আমার নাই
এই আকালের কালে কন তো, কোনহানে যাই ।

 

নির্মাণ

নির্মাণ শিল্পিত হতে হয়
নয়
ভেঙ্গে যায় প্রার্থিত মহল
জল
শুধু থাকে অতঃপর।

নির্মাণ অন্যের হয়ে যায়
হায়
নকশাটা ভুল হয়ে গেলে
নীলে
আকাশেরা ভেসে থাকে।

 

চাওয়ার গল্প

প্রশ্নটা করি উত্তর থাক
জানি কি রয়েছে তাতে

ভালোবাসা থাকে বিষাদের প্রত্যাঘাতে

তুমি কি জানো তা, নাকি
অজানা রয়েছে সেই কথা

চলো, দুজনে ভাঙি সাজানো সব প্রথা

প্রশ্নটা হলো আর উত্তর
বলি তাকে খুব সরাসরি

তুমি তৈরি, আমি রাস্তায়, একসাথে মরি।

ভয়ের সময়

তোমাকে দিতে চেয়েছিলাম সব
তুমি করলে অহেতুক কলরব!

প্রেমের কবিতা লিখার সময় এই
জানি তো, তাই লিখি দুঃসময়েই।

বলতে পারো ভয় কাটাতেই লেখা
ভয়ের কাছেই ভালোবাসতে শেখা।

 

শিরোনামহীন

 

এক)

লিখছি লিরিক অপেক্ষা, লিখছি তাকে স্মৃতি
কিবোর্ডটা কাঁপছে ভীষণ, দুঃখগুলো কৃতি।

মনিটরটা ভাঙছে একা বিষাদ দিনের কাহন
মাউসটা হচ্ছে নিজেই ফিরে যাবার বাহন।

দুই)

ফিরতে ফিরতে যাবে কোথায় হার্ডডিস্কটা ভরা
সাথে আছে স্ক্র্যাপ আর গহীন শোকের জরা।

লিখছি লিরিক অপেক্ষা, ভুলছি তাকে খুব
পাওয়ারটা বন্ধ করে এই আমি যে চুপ।

চলো

চলো, কোথায় যাবো, কতটা পথ
কতদূর গেলে মিলবে পরিত্রাণ –
নিশ্চিত সে পথে যাবো, বাধা
পেরুবো ঠিক, পদব্রজে আপ্রাণ।
তুমি বলো, গন্তব্য কোথায়
কোনখানে হয়েছে শেষ সেই পথ,
বলো, যতটা বন্ধুর হোক
হাত তুলে দুজনে নিই, পৌঁছানোর শপথ।
বলবে এবার, কতদূর যেতে হবে
তুমি যাবে নাকি সাথে –
সাহস হারালে এখনি, অথবা ভয়
পথের অভিসম্পাতে!
চলো নামি পথে, পদব্রজে
পথের পাথর পদতলে ধুলি হোক,
পেছনে জাগুক শত জনপদ
জনেরা ভুলুক সব হারানোর শোক।

কাকন রেজা। লেখক, প্রাবন্ধিক ও সাংবাদিক। জন্ম ১৯৬৮ খ্রিস্টাব্দের ৬ মার্চ, বাংলাদেশে, ঢাকার উত্তর শাহজাহানপুরে। তারুণ্যের দিনগুলো পাড়ি দিয়েছেন লেখকের নিজ জেলাশহর শেরপুরে। তাঁর বাবা মরহুম আব্দুর রেজ্জাক ছিলেন, একাধারে লেখক, সাংবাদিক ও রাজনীতিক। মা জাহানারা রেজ্জাক এক সময়ে ছিলেন...

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..