বল্লরী সেন
কবিতা
Bengali

গীতাদি

টুকরো চেরিফুলের আঁঠায় তোমার চোখের পাপড়ি এখন ভোর, তোমার ঘুমন্ত শরীর মেঘের মতো বিছানো পাহাড়ে পথের দুধারে। গোলাপজামের, কাঠবাদামের,কাজুফুলের গাছ চতুর্দিকে সূর্যকে দিব্বি দিয়ে ডাকছে। মনোরম এক তীব্র গন্ধ বেয়ে আমি চোরের মতো গড়িয়ে দিচ্ছি লাল সিরাপের টানা পাকদণ্ডী সড়ক। এখানে বাকলের গায়ে কবরের ঠিকানা। সেইখানে আপনাকে লিখেছি গীতাদি, লুচি ডিমভাজা আর পায়েস করে পাঠিয়েছিলেন,মনে আছে। আজ ডিম ও বারণ, লুচি ও। কেবল প্রবাহের উনুনে পরমান্নে জ্বাল দেওয়া চলেছে মৃদু গুমো আঁচে। আপনার শেষ কলমের শিয়রে একদিন আমিও ফিরে যাবো রাসের উৎসবে।

বাসের পা দানে উঠে কোনদিন আমাকে ভেবো না , কথা দাও।

 

আহত আগুন

সাদা মোজা পরা বাইসনের পাল এসেছিল চৌরাহাতে সেই বিকেলে।লাল মাটির ওপর তাদের পায়ে লেগে মাটি আরো গাঢ় রক্তিম। পাহাড়ী ঝর্ণায় শিং ধুয়ে জল খেয়ে ওরা একসঙ্গে এগিয়ে যেতো পাইনের বনের দিকে। গিরিখাদ তখন ফুলে ভরে উঠেছে। আহত ঠোঁটের শৃঙ্গারে ময়ূরপুরুষটির ঘুম নেই।সকালের আলো ফুটেছে কি সে চুপিসাড়ে মাদীময়ূরের গ্রীবালেহনের সুযোগ খুঁজছে। বসতি প্রায় নেই। হাসনুহানার আর ল্যাভেণ্ডারের ঝোপে গা লুকিয়ে গতজন্মের অসম্পূর্ণ রতিমাতোয়ারা তারা। কণ্ঠের ঘ্রাণে পাগল হয়ে দুজনেই কোর্টশিপে মগন। পাতা পড়ছে হলুদ লাল। প্রহরায় জোড়া কাঠবিড়ালি। দু দিন ধরে চলেছে বসন্তসফরীর ধ্যান।

 

নামহীন

আরো গভীর সে এক শ্বাপদ হেমন্তকাল, রোদেটম্বুর তেজপাতাগাছ
ঋষির মতো স্থানু এক শিউরানো কৃষ্ণাভা তার হাতে
শীতের গোলাপ
পিচ রাস্তা, অবাক হেলানো সরাইখানায় তার কত
আয়োজন, কাচঘরে তখনো রোদ্দুর ছায়া ফেলে যায়

সেইমতো যা যা কথা ছিল সব মিলে যাবে সেদিন,দেখো
তোমার কপাল কৃশ আপেলের চামড়ায় যেরকম পরজীবী
আমাকে ভক্ষণ করো।

অকৃপণ মাদকের মতো সারি সারি দেহের পানীয়।

বল্লরী সেন। গবেষক, কবি। প্রকাশিত বই বাংলায় ৫ টি ইংরেজি ২ টি। 'বিহান রাতের বন্দিশ' কাব্যগ্রন্থের জন্য ২০১০ এ কৃত্তিবাস পুরস্কার পেয়েছেন। ২০১২ থেকে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বাংলা ভাষার নানা গবেষণায় যুক্ত। 'নারী বীক্ষায় পুরুষের কবিতা' তাঁর সাম্প্রতিক গবেষণা গ্রন্থ।

এই বিভাগের অন্যান্য লেখাসমূহ

কবুতর

কবুতর

অগ্নিকাণ্ড আমার চৌহদ্দিতে ধ্বংসস্তুপের ভীড় পুনর্বার নুয়ে পড়া অতীতের তীর জীবনের মাঝপথে রেখে যায় সম্পর্কের…..